The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

গল্পে গল্পে শিখুন হৃৎপিণ্ডের কাজ এবং হাঁটার উপকারিতা

হৃৎপিন্ড হলো শরীর নামক শহরের প্রাণকেন্দ্র। শহরের সব রাস্তাগুলো এসে মিশেছে প্রাণকেন্দ্রে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শিক্ষা যদি হয় এমন গল্পের মত, তাহলে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখার প্রতি যেমন আগ্রহী হবে তেমনি ভালভাবে বুঝে তা মনেও রাখতে পারবে অনেক দিন। অনেক সুন্দর এই মজার গল্পটি পড়ে শরীরের অভ্যন্তীণ পার্টস সমুহের (হৃৎপিণ্ড, লিভার ইত্যাদি) কাজ এবং কেন বেশি বেশি হাঁটবেন সেই বিষয়ে খুব সহজেই জানতে পারবেন। তাহলে চলুন গল্পটি পড়ে নেওয়া যাক।

গল্পে গল্পে শিখুন হৃৎপিণ্ডের কাজ এবং হাঁটার উপকারিতা 1

আমাদের শরীর যদি একটা ছোট্ট শহর হয় তবে এই শহরের প্রধান মাস্তান হচ্ছে কোলেষ্টেরল। এর সাথে কিছু সাঙ্গ পাঙ্গ আছে। তবে প্রধান সহযোগী ট্রাইগ্লিসারাইড। এদের কাজ হচ্ছে রাস্তায় রাস্তায় মাস্তানি করা, মেয়েদের টিজ করা এসব।

হৃৎপিন্ড হলো এই শহরের প্রাণকেন্দ্র। শহরের সব রাস্তাগুলো এসে মিশেছে প্রাণকেন্দ্রে । মাস্তানের সংখ্যা বেশী হলে কি হয় আপনারা সবাই জানেন। এরা সব রাস্তাগুলো ব্লক করে দিয়ে শহরের প্রাণকেন্দ্র অচল করে দিবে। আপনিও তখন পটল তুলবেন। না তুললেও মাস্তানদের ধর্মঘটে প্রায়ই আপনার প্রিয় শহরে এমন কিছু ঘটবে যে আপনি বেঁচেও মৃতপ্রায় হয়ে থাকবেন। বিয়েতে হাতের রিং তখনও হয়ত হাতেই আছে সাথে হার্টেও রিং পরতে হবে।

আমাদের শরীর নামক শহরে কি পুলিশ নেই? যারা মাস্তানদের ক্রসফায়ার করবে, অথবা জেলে ভরবে। হ্যাঁ, আছে। তার নাম এইচডিএল। এইচডিএল পাড়ায় পাড়ায় মাস্তানী করা এসব মাস্তানদের রাস্তা থেকে তুলে এনে জেলে ভরে রাখে। জেলখানা চিনেন তো? লিভার বা কলিজা হল জেলখানা। লিভার এইগুলোকে বাইল সল্ট বানিয়ে শহরের পয়ঃনিষ্কাশন লাইনের মাধ্যমে (পায়খানার সাথে) শহর থেকে বের করে দেয়। কি আজব শাস্তি মাস্তানদের!

খুব মজা লাগছে তাই না? এইচ ডি এল কে বন্ধু বন্ধু লাগছে? পুলিশের ছোট ভাই লিটল ডিএল বা সংক্ষেপে এলডিএল আবার রাজনীতিবিদ। সে লবিং করে জেলখানা থেকে কোলেষ্টেরল বা ট্রাইগ্লিসারাইড রুপী মাস্তানদের তুলে এনে আবার রাস্তায় বসিয়ে দেয়। তাদের মাতলামোতে পুরো শরীরে জ্যাম লেগে যায়। আর এলডিএল মুখ টিপে টিপে হাসে।

এইচডিএল হায় হায় করে দৌড়ে আসে। কিন্তু সে এলডিএল আর মাস্তানদের যৌথ শক্তির সাথে পেরে ওঠেনা। পুলিশের সংখ্যা যত কমে মাস্তানরা ততই উল্লসিত হয়। শহরের পরিবেশ হয়ে ওঠে অস্বাস্থ্যকর। এমন শহর কার ভালো লাগে বলুন? আপনি মাস্তানদের কমিয়ে পুলিশ বাড়াতে চান? তবে হাঁটুন। আপনার প্রতি কদমে এইচডিএল (পুলিশ) বাড়বে, এলডিএল (লবিং করা রাজনীতিবিদ) কমবে, মাস্তান (কোলেষ্টেরল) কমবে! আপনার শহরে (শরীর) প্রানচাঞ্চল্য ফিরে পাবে। আপনার প্রানকেন্দ্র (হার্ট) মাস্তানদের অবরোধ (হার্ট ব্লক) থেকে বাঁচবে। আর শহরের প্রানকেন্দ্র (হার্ট) বাঁচা মানে আপনিও বাঁচবেন।

Loading...