The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

‘বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নাগরিকত্বর কী হবে?’

১৯৭১ সালের ‘মুক্তিযুদ্ধ’ চলাকালীন বিপ্লব দেবের বাবা-মা ভারতে চলে যান৷ ভারতে যাওয়ার পর ত্রিপুরার মাটিতে জন্মগ্রহণ করেন বিপ্লব দেব

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের বহু আত্মীয় থাকেন বাংলাদেশ ৷ তাহলে তাঁর নাগরিকত্ব নিয়ে কী হবে? শুধু তাই নয়, মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার সময় নাকি বাংলাদেশে থাকা বিপ্লব বাবুর আত্মীয়দের ছবি ও মন্তব্যও প্রকাশ করেছিল দুই দেশের সংবাদ মাধ্যম!

‘বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নাগরিকত্বর কী হবে?’ 1

সেই সব মন্তব্য ঘিরেই বর্তমান পরিস্থিতিতে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীকে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত হিসেবে কটাক্ষ করে বলা হচ্ছে অবিলম্বে তাঁকে প্রমাণ করতে হবে যে তিনি আসলেও ভারতীয়৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁকে ঘিরে বিভিন্ন মন্তব্য প্রকাশ করা হয়েছে৷

ত্রিপুরার ওই মুখ্যমন্ত্রীর পৈত্রিক বাড়ি বাংলাদেশে৷ চট্টগ্রাম বিভাগের কচুয়া উপজেলার সহদেবপুর পূর্ব ইউনিয়নের মেঘদাইর গ্রামেই তার আদিবাড়ি৷ সেখানে বসবাস করেন বিপ্লব দেবের বাংলাদেশী কাকা প্রাণধন দেব৷

ভাইপো মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর তিনি জানিয়েছিলেন যে, ১৯৭১ সালের ‘মুক্তিযুদ্ধ’ চলাকালীন বিপ্লব দেবের বাবা-মা ভারতে চলে যান৷ ভারতে যাওয়ার পর ত্রিপুরার মাটিতে জন্মগ্রহণ করেন বিপ্লব দেব৷

আসামের নাগরিক পঞ্জীকরণ খসড়ার তালিকা প্রকাশ নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে চলছে বিতর্ক৷ সেখানকার ৪০ লক্ষ মানুষের পরিস্থিতি নিয়ে উত্তাল হয়েছে ভারত৷ তারই মাঝে সোশ্যাল মিডিয়া সরব ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে৷

উত্তর পূর্বের এই রাজ্যের নতুন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, আসামের মতো ত্রিপুরাতে নাগরিক পঞ্জীকরণের কোনো প্রয়োজন নেই৷ নাগপুরে আরএসএস সদর দফতরেও গিয়েছিলেন তিনি৷ বিভিন্ন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে উঠে আসছে পালটা নানা মন্তব্য৷ এতে বিব্রত হচ্ছেন ত্রিপুরা সরকার৷ কারণ হলো বিপ্লববাবু আগেই জানিয়েছেন যে, আসামের মতো এনআরসি জারি করার মতো পরিস্থিতি নেই ত্রিপুরায়৷ নিজের অবস্থা বুঝতে পেরেই কি আগেভাগে পিছু হটেছেন ত্রিপুরার এই মুখ্যমন্ত্রী? সোশ্যাল মিডিয়ায় তাকে চলছে নানা প্রশ্ন৷

Loading...