মস্তিষ্ককে সতেজ এবং প্রখর ধারণক্ষমতা সম্পন্ন রাখতে যা করতে হবে

মস্তিষ্ককে সর্বদা সতেজ না রাখলে ধীরে ধীরে তার কার্যক্ষমতা কমতে থাকে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রতিটি প্রানীর সমস্ত নিয়ন্ত্রণের মূল হচ্ছে মস্তিষ্ক। মস্তিষ্ককে সর্বদা সতেজ না রাখলে ধীরে ধীরে তার কার্যক্ষমতা কমতে থাকে। সেই সাথে ভুলে যাওয়া, নতুন কিছু চিন্তা করতে না পারা সহ নানা সমস্যা দেখা দেয়। আজ আমরা জানবো কিভাবে মস্তিষ্ককে সতেজ এবং প্রখর ধারণক্ষমতা সম্পন্ন রাখা যায়।

১। পর্যাপ্ত ভাবুনঃ

কোন অজানা বিষয় বা কোন সমস্যা সমাধান করতে পর্যাপ্ত ভাবুন। যত চিন্তা করবেন তত আপনার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। দিন শেষে কিছুক্ষণ একাকি কোন নিরিবিলি পরিবেশে বসে ভাবুন, সারাদিন কি কি করলেন, সেই কাজগুলো আপনার মনের মত হয়েছে কিনা একটু চিন্তা করুন। এভাবে নিয়মিত অভ্যাস গড়ে তুলুন। তাহলে মস্তিষ্ক ঠিক মত দ্রুত কাজ করার ক্ষমতা অর্জন করবে।

২। পর্যাপ্ত জাম এবং স্ট্রবেরি খেতে পারেনঃ

জাম এবং স্ট্রবেরি সারা বছর ঠিক মত পাওয়া না গেলেও যখন পাওয়া যাবে তখন পর্যাপ্ত পরিমাণে খাওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ জাম বা স্ট্রবেরিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বা ফ্ল্যাভানওয়েডস মস্তিষ্কের কোষগুলোকে রক্ষা করে। ফলে ভুলে যাওয়ার সমস্যা থেকে রেহাই পাবেন।

৩। নতুন ভাষা শিখতে চেষ্টা করুনঃ

নতুন ভাষা শিখতে শুরু করুন। নতুন ভাষার নতুন নতুন শব্দ আপনার মস্তিষ্ককে আরো প্রখর করে তুলবে। মস্তিষ্ক হচ্ছে বিশাল তথ্য ভান্ডার। যত তথ্য জমা রাখবেন ততই ভাল থাকবে। নতুন ভাষা আপনার মনকেও সজিব রাখতে সাহায্য করবে।

৪। কখনই রেগে যাবেন নাঃ

রাগ মস্তিষ্কের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলে। তাই সামান্য বিষয় নিয়ে কখনও রেগে যাওয়া উচিৎ নয়। সর্বদা চেষ্টা করবেন নিজেকে নিয়ন্ত্রণ রাখা। আপনার মস্তিষ্ক ঠিক মানে সারা শরীর নিয়ন্ত্রনে থাকা। হঠাৎ করে রেগে গেলে স্বাভাবিকভাবে মস্তিষ্কের কার্যকলাপে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয় ফলে ওই সময় কি করবেন ঠিক বুঝে উঠতে পারেন না। তাই রাগ থেকে দুরে থাকুন।

৫। ধর্মীয় কাজে মনযোগ দিনঃ

ধর্মীয় কার্যকলাপ আপনাকে সর্বদা শান্ত এবং সজিব রাখবে। যখন আপনি প্রার্থনা করেন তখন আপনার মস্তিষ্ক খুব শান্ত থাকে। শান্ত থাকা বলতে কখনই ভাববেন না নিরব থাকা। একমাত্র অলস ব্যক্তিদের মস্তিষ্ক সর্বদা নিরব থাকে। এখানে শান্ত বলতে স্বাভাবিক ভাবে কার্যকলাপ সম্পাদন করাকে বোঝানো হয়েছে।

৬। সবুজ নিরিবিলি পরিবেশে হাঁটুনঃ

প্রতিদিন সকাল বা বিকালে কিছু সময় সবুজ এবং নিরিবিলি পরিবেশে হাঁটুন। তাহলে শরীর, মন এবং ব্রেইন সব সজিব থাকবে।

Advertisements
Loading...