অবশেষে যাত্রা শুরু করলো পাট দিয়ে তৈরি পলিথিন ব্যাগ

এই সোনালী ব্যাগ পরিবেশবান্ধব এবং পুনরায় উৎপাদনে সক্ষম

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পাট থেকে পলিথিন (জুটপলি) উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করতে যুক্তরাজ্যের একটি বেসরকারি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন (বিজেএমসি)। ২ অক্টোবর সচিবালয়ে পাট মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এবং পাট মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরীর উপস্থিতিতে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

পাট মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বিজেএমসি’র পক্ষে বিজেএমসি’র সচিব একেএম তারেক এবং যুক্তরাজ্যের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ফুটামুরা কেমিক্যালের পক্ষে কোম্পানিটির জেনারেল ম্যানেজার প্রিমি কোউলহার্ড সমঝোতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এসময় বিজিএমসি’র চেয়ারম্যান ড. মো. মাহামুদুল হাসান এবং পাট থেকে পলিথিন তৈরির উদ্ভাবক ড. মোবারক হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে মির্জা আজম জানান, ‘আগামী ৬ থেকে ৯ মাসের মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে পাট থেকে পলিথিন উৎপাদন শুরু হবে। প্রথমদিকে স্বাভাবিক পলিথিনের তুলনায় এই পলিথিনের ব্যাগের দাম কিছুটা বেশি হবে। তবে উৎপাদন বাড়লে দামের সমন্বয় হয়ে যাবে।’

ড. মোবারক আহমদ খান বলেন, পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর পল্গাস্টিকের তৈরি পলিথিনের ব্যবহার রোধ করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই মূলত জুট পলিমার উৎপাদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রাজধানীর ডেমরার লতিফ বাওয়ানী জুট মিলে জুট পলিমার উৎপাদন হচ্ছে। ইতিমধ্যে কয়েক হাজার ব্যাগ উৎপাদন করা হয়েছে, যা বাণিজ্য মেলায় বিক্রি হচ্ছে। তিনি বলেন, দেশে ও বিদেশে জুট পলিমারের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। মেলা থেকে রফতানি আদেশ আসবে বলেও আশা করেন তিনি। মোবারক আহমদ বলেন, পচনশীল না হওয়ায় পলিথিন নানা ক্ষতি করছে। এসব দিক বিবেচনা করেই এখন জুট পলিমার তৈরি করা হচ্ছে। পলিমার ব্যাগ দুই থেকে ছয় মাসের মধ্যে মাটির সঙ্গে মিশে যাবে। এটি প্লাস্টিক পলিব্যাগের চেয়েও টেকসই এবং বেশি ভার বহন করা যায়।

পাট থেকে পলিথিন তৈরির উদ্ভাবক মোবারক হোসেন বলেন, ‘এই সোনালী ব্যাগ পরিবেশবান্ধব এবং পুনরায় উৎপাদনে সক্ষম।’

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...