The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ‘ক্রিমিনাল’ : নোবেলজয়ী কারমান

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে ‘ক্রিমিনাল’ হিসেবে মন্তব্য করলেন নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী ইয়েমেনের মানবাধিকারকর্মী তাওয়াক্কুল কারমান। ইয়েমেনের চলমান গৃহযুদ্ধের জন্যও তিনি সৌদি যুবরাজকে দায়ী করেন এবং ইয়েমেনকে ধ্বংস করার অভিযোগও করেন।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ‘ক্রিমিনাল’ : নোবেলজয়ী কারমান 1

সৌদি জোটের নেতৃত্বে ইয়েমেনে যে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে তাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন বন্ধে গত বৃহস্পতিবার কংগ্রেসে একটি প্রস্তাবও পাস করা হয়েছে। তবে হোয়াইট হাউস ইঙ্গিত দিয়েছে যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া ওই প্রস্তাবের বিরুদ্ধে হয়তো ভেটো দিতে পারেন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রেসিডেন্ট আবদ রাব্বু মানসুর হাদির সরকারের সঙ্গে সৌদি আরব এবং আমিরাত সামরিক জোটের ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। হাদি ২০১৫ সাল হতে হুথি বিদ্রোহীদের সঙ্গে যুদ্ধ করছে।

দাতব্য সংস্থাগুলোর আনুমানিক হিসাব মতে, ইয়েমেন যুদ্ধে এ পর্যন্ত ৬০ হাজারের বেশি বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। শিশুদের নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন বলেছে যে, যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট দুর্ভিক্ষের জন্য দেশটির প্রায় ৮৫ হাজার শিশু খেতে না পেয়ে মারা গেছে।

নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী ইয়েমেনের সক্রিয় মানবাধিকারকর্মী তাওয়াক্কুল কারমান বলেছেন যে, ইয়েমেনের এই যুদ্ধ বন্ধ করার ক্ষমতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের রয়েছে।

তিনি ট্রাম্পকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আমি ইয়েমেন যুদ্ধ বন্ধ করার জন্য তাকে আহ্বান জানাচ্ছি। তবে তিনি তা করবেন না। তিনি এর চেয়ে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তি করা নিয়েই বেশি ব্যস্ত।’

ধারণা করা হয় যে, সৌদি আরবের ডি-ফ্যাক্টো নেতা যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্বেই ইয়েমেনে যুদ্ধ চালানো হচ্ছে। আল জাজিরা যখন তাওয়াক্কুল কারমানকে প্রশ্ন করে, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের উদ্দেশে তার কিছু বলার রয়েছে কি না? তখন কারমান উত্তর দেন, তিনি বিশ্বাস করেন সালমান একজন ‘ক্রিমিনাল’।

তাওয়াক্কুল কারমান আরও বলেন যে, ‘আমি যুবরাজ সালমানের কাছ থেকে কোনো কিছুই জানতে চাই না, কারণ সে আমার দেশটাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে মোহামম্মদ বিন সালমান এবং আবু ধাবির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন জায়েদের বিচার করা উচিত। কেনোনা তারা আমার দেশে যা করছে সেটা একটা যুদ্ধাপরাধ।’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...