The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

একটি ল্যাপটপের দাম ৯ কোটি টাকা!

দেখতে আর পাঁচটা সাধারণ ল্যাপটপের মতো হলেও এই ল্যাপটপে রয়েছে বিশেষত্ব

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ একটি ল্যাপটপের দাম কতো হতে পারে? ৫০ হাজার, ১ লাখ টাকা? নাকি তারও বেশি? তবে এবার শোনা গেলো একটি ল্যাপটপের দাম ৯ কোটি টাকা!

একটি ল্যাপটপের দাম ৯ কোটি টাকা! 1

কথাটি বিশ্বাস করা প্রায় কঠিন। আপনারা হয়তো অনেক দামের ল্যাপটপের কথা শুনেছেন। ৫/৬ লাখের ল্যাপটপও হতে পারে। তাই বলে আপনি কী কখনও শুনেছেন একটা ল্যাপটপ বিক্রি হয়েছে ৯ কোটি টাকায়? কেনো এতো দাম ওই ল্যাপটপের? এই রহস্যের পিছনে রয়েছে ভয়ঙ্কর ও চমকপ্রদ গল্প! তাহলে কী সেই গল্প? আসুন সেটি জেনে নেওয়া যাক।

দেখতে আর পাঁচটা সাধারণ ল্যাপটপের মতো হলেও এই ল্যাপটপে রয়েছে বিশেষত্ব। নিউ ইয়র্কে নিলাম হয়েছে এই ল্যাপটপটির। দেখতে সাধারণ হলেও এটি মোটেও সাধারণ নয়। এই ল্যাপটপের জন্য গোটা বিশ্বে প্রায় ৭ লাখ কোটি টাকার ক্ষতিও হয়েছে। ভয়ঙ্কর সব ম্যালওয়্যারে ভর্তি এই ল্যাপটপের মধ্যে!

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, এই ল্যাপটপের মধ্যে এমন ভাইরাস রয়েছে, যা বিশ্বের ৭৪টি দেশের কম্পিউটার সিস্টেমকে পুরো বিকল করে দেয়।

সাইবার সিকিউরিটি সংস্থা ডিপ ইনস্টিংক্ট-এর সঙ্গে যৌথভাবে ভয়ঙ্কর এই ল্যাপটপটি তৈরি করেন গুয়ো ডাং। ল্যাপটপটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘পারসিসটেন্স অব কেওস’।

এই ল্যাপটপের মধ্যে ভয়ঙ্কর সব ম্যালওয়্যার ঢুকিয়ে দিয়েছে ডিপ ইনস্টিংক্ট। ল্যাপটপের মধ্যে রয়েছে ক্রাই র‌্যানসমওয়্যার-এর মতো ভয়ঙ্কর কিছু ম্যালওয়্যার। ২০১৭ সালে বিশ্বের ১৫০টি দেশে কম্পিউটার সিস্টেমে হামলা চালিয়েছিল এই ভাইরাসটি। যার জেরে ৪০০ কোটি ডলার ক্ষতি সাধিত হয়।

ক্রাই র‌্যানসমওয়্যার ছাড়াও এই ল্যাপটপে আরও রয়েছে ব্ল্যাক এনার্জি-র মতো ম্যালওয়্যারও। এই ম্যালওয়্যারের হামলায় ইউক্রেন ও তার পার্শ্ববর্তী বিশাল একটি এলাকা জুড়ে পাওয়ার গ্রিড বিকল হয়ে গিয়েছে।

এই ল্যাপটপে রয়েছে আইলাভইউ ম্যালওয়্যার। একে লাভ বাগ বা লাভ পাকও বলা হয়ে থাকে। ২০০০ সালে ফিলিপাইনসে এই ম্যালওয়্যার ১ কোটি উইন্ডোজ পার্সোনাল কম্পিউটারে হামলা চালিয়েছিলো।

এই ল্যাপটপে আরও রয়েছে মাইডুম-এর মতো ম্যালওয়্যার। ২০০৪ সালের কথা। সেই সময় এই ম্যালওয়্যার হামলা হয়েছিলো। দাবি করা হয় যে, এর পিছনে রাশিয়ার ইমেল স্প্যামারদেরও নাকি হাত রয়েছে। এই ল্যাপটপে আরও রয়েছে সো বিগ ও ডার্ক টাকিলা-র মতো ভয়াবহ ম্যালওয়্যার।

তবে এই ল্যাপটপটি হতে যাতে কোনওভাবেই ম্যালওয়্যার ডাউনলোড করা না যায় কিংবা ইন্টারনেট সংযোগ করা না যায় তার জন্যও নেওয়া হয়ছে বিশেষ ব্যবস্থা।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, ল্যাপটপটি আর্টপিস হিসেবেই তৈরি করেন গুয়ো ডাং। স্যামসাংয়ের এই ল্যাপটপটিতে উইন্ডোজ এক্সপি অপারেটিং সিস্টেমে চলে। তথ্যসূত্র আনন্দবাজার পত্রিকা

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...