The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

গাড়ি ঢুকে গেলো সোজা টিভির শোরুমে!

হয়তো ভুলবশত উল্টো গিয়ার পড়ার কারণে এটি দ্রুতগতিতে সামনের দিকে এগিয়ে গিয়েছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সাপ্তাহিক ছুটির দিন মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) এর ঘটনা। বন্ধ ছিল রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় সীমান্ত স্কয়ার শপিং সেন্টার। যে কারণে মানুষের আনাগোনাও ছিল না বললেই চলে। এদিন গাড়ি ঢুকে গেলো সোজা টিভির শোরুমে! যে কারণে মানুষের আনাগোনাও ছিল না বললেই চলে। কিন্তু দুপুরে হঠাৎ বিকট শব্দ হওয়ার পরে দেখা গেলো একটি বেপরোয়া গাড়ি সীমান্ত স্কয়ারের প্রবেশপথের পর তিনটি সিঁড়ি বেয়ে ওপরে উঠে সরাসরি গ্লাস ভেঙে ঢুকে গেছে সনি- র‌্যাংগসের শোরুমের ভেতরে!

গাড়ি ঢুকে গেলো সোজা টিভির শোরুমে! 1

সাপ্তাহিক ছুটির কারণে মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) এর ঘটনা। বন্ধ ছিল রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় সীমান্ত স্কয়ার শপিং সেন্টার। যে কারণে মানুষের আনাগোনাও ছিল না বললেই চলে। কিন্তু দুপুরে হঠাৎ বিকট শব্দ হওয়ার পরে দেখা গেলো একটি বেপরোয়া গাড়ি সীমান্ত স্কয়ারের প্রবেশপথের পর তিনটি সিঁড়ি বেয়ে ওপরে উঠে সরাসরি গ্লাস ভেঙে ঢুকে গেছে সনি- র‌্যাংগসের শোরুমের ভেতরে!

এই ঘটনায় কোনো প্রাণহানি না ঘটলেও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয় শোরুমটি। ‘এক্স করলা’ মডেলের ওই গাড়িটির নম্বর প্লেটে ‘ঢাকা-মেট্রো-গ-২১-৫৫৬২’ লেখা ছিলো।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, গাড়িটি সীমান্ত স্কয়ারে ঢুকে প্রথমে পেছনে নেওয়ার চেষ্টা করছিল। হয়তো ভুলবশত উল্টো গিয়ার পড়ার কারণে এটি দ্রুতগতিতে সামনের দিকে এগিয়ে গিয়েছে। সেখানে ৩টি সিঁড়ি ছিল। গতির কারণে প্রথম সিঁড়িতে লেগেই গাড়িটি জাম্প করে (সামান্য উপরে উড়ে) কাচ ভেঙে শোরুমে ঢুকে পড়ে।

সনি টিভির সীমান্ত স্কয়ার শোরুমের ম্যানেজার আবদুল আজিজ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন যে, শোরুম বন্ধ ছিল। ১২টার সময় সীমান্ত স্কয়ার কর্তৃপক্ষ আমাদের ফোন দিলে আমরা এসে দেখি গ্লাস ভেঙে গাড়িটি শোরুমে ঢুকে গেছে। সবার সঙ্গে কথা বলে জেনেছি যে, চালকের চরম গাফিলতির কারণেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে শোরুমের সামনের দিকের পুরো গ্লাসটি ভেঙে গেছে। তবে কোনো রকম মালামালের ক্ষতি হয়নি। মার্কেট কর্তৃপক্ষ গাড়ির মালিকের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি মিটমাট করে ফেলেছেন। গাড়ির মালিক আমাদের ক্ষতিপূরণ দেবে বলে জানিয়েছে।

তবে ধানমন্ডি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খায়রুল ইসলাম বলেছেন, কোনো দুর্ঘটনার সংবাদ আমরা এখনও পাইনি। এমন কিছু ঘটলে কর্তৃপক্ষকে আমাদের জানানোর কথা। আমাদের কেও ফোনও দেয়নি, এমনকি কেও সাহায্যও চায়নি।

Loading...