The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ভ্রমণ: ঘুরে আসুন মীরসরাইয়ের সোনাইছড়ি ট্রেইল

সবচেয়ে সুন্দর সোনাইছড়ি ট্রেইলের বৈচিত্র্যময় বুনো পাথুরে সৌন্দর্য অ্যাডভেঞ্চার প্রেমীদের অদ্ভুত মায়ায় আকর্ষণ করবে তাতে সন্দেহ নেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভ্রমণের জন্য বের হতে গেলে বেশ কিছু বিষয় আপনার মাথায় রাখতে হবে। আর তা হলো কোথায় যাবেন কিভাবে যাবেন ইত্যাদি। আজ রয়েছে মীরসরাইয়ের সোনাইছড়ি ট্রেইল বেড়াতে যাওয়ার গাইডলাইন।

ভ্রমণ: ঘুরে আসুন মীরসরাইয়ের সোনাইছড়ি ট্রেইল 1

চট্টগ্রামের বারৈয়াঢালা অভয়ারণ্যের অন্তর্ভুক্ত মীরসরাইয়ের হাদি ফকিরহাট বাজার সংলগ্ন সোনাইছড়ি ট্রেইল বেড়ানোর জন্য একটি আদর্শ জায়গা। চট্টগ্রামের সবচেয়ে সুন্দর সোনাইছড়ি ট্রেইলের বৈচিত্র্যময় বুনো পাথুরে সৌন্দর্য অ্যাডভেঞ্চার প্রেমীদের অদ্ভুত মায়ায় আকর্ষণ করবে তাতে সন্দেহ নেই।

পিচ্ছিল ঝিরিপথ, খাড়া পাহাড় এবং বাদুইজ্জাখুম পার হয়ে যাওয়ার সময় যে রোমাঞ্চকর অনুভূতির সৃষ্টি হয়ে থাকে সেই অভিজ্ঞতা সারাজীবনের এক অনন্য সঞ্চয় বলা যায়। বাদুইজ্জাকুমের দুইপাশের ১০০-১৫০ ফুট উঁচু খাড়া পাথুরে দেওয়ালের অন্ধকারে হাজার হাজার বাঁদুরের ডানা ঝাপটানো শব্দ যেনো এক ভুতুড়ে পরিবেশের সৃষ্টি করে। ২৮ কিলোমিটার ট্রেইলের শেষ প্রান্তে পৌঁছালেই অপূর্ব সোনাইছড়ি ঝর্ণা নিমিষেই সমস্ত ক্লান্তি দূর করে দেবে। তবে এই সোনাইছড়ি ট্রেকিং ট্রেইলে যেতে হলে দলগত ভাবে যাওয়ায় ভালো এবং ট্রেকিং এর পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকলে আরও সুবিধা হবে। বর্ষাকালে ফ্লাশ ফ্লাডের আশংখ্যাও থাকে। তাই বর্ষাকালে যাবার ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্কতা মেনে চলতে হবে।

যাবেন কিভাবে

রাজধানী ঢাকার সায়দাবাদ, ফকিরাপুল ও মহাখালী বাসস্ট্যান্ড হতে চট্টগ্রামগামী এস আলম, শ্যামলী, হানিফ, সৌদিয়া, ইউনিক, এনা, ঈগল, সোহাগ ইত্যাদি বাসে করে হাদি ফকিরহাট বাজারে আসতে পারবেন। ঢাকা হতে চট্টগ্রাম হাদি ফকিরহাট বাজার পর্যন্ত জনপ্রতি বাস ভাড়া লাগবে ৪২০ থেকে ১১০০ টাকা। তারপর হাদি ফকিরহাট জামে মসজিদের কাছ থেকে পায়ে হেঁটে কিংবা সিএনজি নিয়ে ট্রেইল শুরুর স্থান বড় পাথর আসতে হবে। বড় পাথর হতে সোনাইছড়ি ট্রেইলের শেষ প্রান্তে পৌঁছাতে ৪ হতে ৫ ঘণ্টা সময় লাগবে।

থাকবেন কোথায়

একদিনের ভ্রমণে সাধারণত এখানে রাত্রিযাপনের কোনো প্রয়োজন হয় না। রাতে থাকার জন্য মীরসরাই এবং সীতাকুন্ডে কিছু সাধারণ মানের আবাসিক হোটেলও রয়েছে। সীতাকুণ্ড বাজারে অবস্থিত হোটেল সৌদিয়া ও সাইমুন হোটেল অন্যতম। আরও ভালো কোথাও থাকতে আপনাকে চাইলে চট্টগ্রাম যেতে হবে। চট্টগ্রামের অলংকার মোড়, স্টেশন রোড, নিউমার্কেট ও জিইসি মোড়ে বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেলেও রাত্রি যাপন করতে পারবেন ইচ্ছে করলে।

ট্রেকিং করার জন্য যে সকল জিনিস সঙ্গে রাখবেন

ট্রেকিং করতে হলে ব্যাকপ্যাকে যে সকল জিনিস আপনি রাখবেন- তা হলো প্রয়োজনীয় শুকনা খাবার, অতিরিক্ত পোষাক, ক্যাপ, ভালো গ্রীপের জুতা, গামছা, হাফ প্যান্ট/থ্রী কোয়ার্টার, পানির বোতল, ফাস্ট এইড ও প্রয়োজনীয় ঔষধ ইত্যাদি আপনাকে রাখতে হবে।

তথ্যসূত্র: https://vromonguide.com

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...