The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

আশা জাগানিয়া গান ১২ শিল্পীর কণ্ঠে [ভিডিও]

১২জন শিল্পী একসঙ্গে কণ্ঠে তুলেছেন তেমনই একটি আশা জাগানিয়া গান

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ পুরো বিশ্ব বর্তমানে ভয়াবহ সংকটে। প্রায় গোটা পৃথিবীই মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আশার গান ১২ শিল্পীর কণ্ঠে।

আশা জাগানিয়া গান ১২ শিল্পীর কণ্ঠে [ভিডিও] 1

এমন এক মহামারিতে ভুগছে বাংলাদেশও। যে কারণে সবার মনেই আতঙ্ক ও ভয়। অন্ধকার হতাশায় সকলেই যেনো ডুবে রয়েছেন। কখনও এমন একটা সময় আসতে পারে তা কেও আশা করেনি। গোটা বিশ্বের মানুষ বর্তমান সময়টাকে নিজেদের জন্য ‘অসময়’ বলেই মনে করলেও হাল ছাড়েনি অনেকেই। নানাভাবে বাঁচার চেষ্টা করছেন, নানাভাবে জাগিয়ে রাখছেন বাঁচার আশাকেও।

১২জন শিল্পী একসঙ্গে কণ্ঠে তুলেছেন তেমনই একটি আশা জাগানিয়া গান। ‘বাঁচি আশায় ভালোবাসায়’ শিরোনামে, সারগাম সাউন্ড স্টেশনের ইউটিউব চ্যানেলে গানটি প্রকাশ করা হয়েছে। কবির বকুলের কথায় এই গানটির সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন রাজা বশির।

গানে কণ্ঠ দিয়েছেন- বাদশা বুলবুল, বাপ্পা মজুমদার, রুমানা ইসলাম খান, দিঠি আনোয়ার, দিনাত জাহান মুন্নী, কোনাল, রাজা বশির, হুমায়রা বশির, সমরজিৎ রায়, ইউসুফ আহমেদ খান, সাব্বির জামা ও প্রিয়াংকা গোপ। গানটি তৈরি হলো খ্যাতিমান শিল্পী দম্পতি বশির আহমেদ ও মীনা বশিরের পুত্র-কন্যা হুমায়রা বশির ও রাজা বশিরের নিজস্ব পরিকল্পনায়।

গানটির প্রধান উদ্যোক্তা হুমায়রা বশির এ সম্পর্কে বলেন, ‘মানুষকে আশা নিয়েই বাঁচতে হবে। ভালোবাসাই হলো মানুষের একমাত্র ভরসা। এই গানের লাইনে লাইনে সেই আশা-ভালোবাসার প্রত্যাশার কথাই তুলে ধরেছেন জনপ্রিয় গীতিকার কবির বকুল। আশা করি সবার খুব ভালো লাগবে।

দেখুন ভিডিও গানটি

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...