The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বিজেপিকে প্রিয়াংকার চ্যালেঞ্জ: ‘আমি ইন্দিরা গান্ধীর নাতনি’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতে উত্তরপ্রদেশের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী ও দলের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াংকা গান্ধী। নিজের বংশ পরিচয় মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, ‘আমি ইন্দিরা গান্ধীর নাতনি’।

বিজেপিকে প্রিয়াংকার চ্যালেঞ্জ: ‘আমি ইন্দিরা গান্ধীর নাতনি’ 1

দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপিকে সতর্ক করে তিনি বলেছেন, সরকার তার বিরুদ্ধে যে কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার নিক। তিনি ইন্দিরা গান্ধীর নাতনি। তাকে হুমকি দিয়ে কোনো লাভ নেই। সত্য কথা তিনি সব সময় বলবেনই।

উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের সরকারের কাজকর্ম নিয়ে প্রশ্ন তোলায় একাধিক দফতর বর্তমানে তার বিরুদ্ধে সক্রিয়। তবে পিছু হটবেন না বলে সাফ জানি দিয়েছেন প্রিয়াংকা গান্ধী।

তাঁর ভাষায়, ‘আমি ইন্দিরা গাঁন্ধীর নাতনি, কিছু বিরোধী নেতা-নেত্রীর মতো বিজেপির অঘোষিত মুখপাত্র আমি নই।’

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ভারতের বেশিরভাগ রাজ্যের মতোই উত্তরপ্রদেশেও ভয়াবহ থাবা বসিয়েছে করোনা ভাইরাস। তবে মহামারী মোকাবেলায় রাজ্য সরকারের নানা অনিয়ম ও অব্যাবস্থাপনার কথা উঠে আসছে প্রকাশ্যে।

ইতিমধ্যেই কানপুরে একটি সরকারি হোমে সম্প্রতি বেশ কয়েক জন কিশোরী করোনা আক্রান্ত হন। তাদের কয়েকজন আবার গর্ভবতী বলেও খবর বের হয়।

বিষয়টি নিয়ে গত কয়েক দিন ধরেই যোগী আদিত্যনাথ সরকারকে সমালোচনা করে আসছেন প্রিয়াংকা গান্ধী। একাধিক সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট তুলে ধরে তিনি জানান, বর্তমানে উত্তরপ্রদেশে ভাইরাস পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক।

তিনি আরও জানান, কানপুর সরকারি হোমে ৫৭ জন কিশোরী আক্রান্ত হয়েছেন। এসব সমালোচনা উঠতেই প্রিয়াংকার বিরুদ্ধে সরব হয়েছে যোগী সরকার। অভিযোগ করা হয় যে, পুরো সত্য না জেনেই ওই সরকারি হোম নিয়ে প্রিয়াংকা বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়েছেন।

যার জেরেই গত শুক্রবার প্রিয়াংকাকে নোটিস দেয় উত্তরপ্রদেশ চাইল্ড রাইটস প্যানেল। তিন দিনের মধ্যে তার কাছ থেকে জবাবও চাওয়া হয়।

বিষয়টি নিয়েই এদিন টুইটারে ফুঁসে ওঠেন প্রিয়াংকা গান্ধী। তিনি লেখেন যে, ‘জনগণের সেবক হিসেবে উত্তরপ্রদেশের মানুষের কাছে আমি দায়বদ্ধ। প্রকৃত সত্যটা সামনে আনা আমার কর্তব্য, বিজেপি সরকারের তথ্য প্রচার করা নয়।’
উত্তরপ্রদেশ সরকার তাকে হুমকি দিচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন প্রিয়াংকা গান্ধী।

প্রিয়াংকা গান্ধী বলেন, ‘উত্তরপ্রদেশ সরকার বিভিন্ন দফতরের মাধ্যমে আমাকে হুমকি দিয়ে খামোখা সময় নষ্ট করছেন, যা পারে করুক ওরা। সত্যিটা আমি সামনে তুলে আনবই। আমি ইন্দিরা গাঁন্ধীর নাতনি, বিরোধী পক্ষের কিছু নেতার মতো বিজেপির অঘোষিত মুখপাত্র নই আমি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...