The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মা-মেয়ে লিফটে চারদিন: কীভাবে বেঁচে ছিলো জানেন?

চারতলা বাড়িতে লিফটে আটকা পড়েছিলেন ওই চীনের মা-মেয়ে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ চীনের ৮২ বছর বয়সী এক মা ও তার ৬৪ বছর বয়সী মেয়ে লিফটে আটকা পড়ে ছিলেন চারদিন। জীবন বাঁচাতে এই সময় তারা কী করেছিলেন জানেন? জেনে নিন বিষয়টি।

মা-মেয়ে লিফটে চারদিন: কীভাবে বেঁচে ছিলো জানেন? 1

এই বয়ষ্ক মা ও মেয়ে চারদিন লিফটে আটকে থাকা অবস্থায় জীবন বাঁচাতে এই সময় তারা একে অন্যের প্রস্রাব পান করেছেন! ডেইলি মেইলের এক খবরে জানা যায়, চারতলা বাড়িতে লিফটে আটকা পড়েছিলেন ওই চীনের মা-মেয়ে। লিফটের ভেতর তাদের কাছে কোনো খাবারও ছিল না। এমনকি ফোন করারও কোনো ব্যবস্থা তাদের কাছে ছিল না।

কোনো উপায় না পেয়ে একে অন্যের প্রস্রাব পান করতে বাধ্য হয়েছেন তারা। প্রস্রাব পান করার ক্ষেত্রে কোনো সরঞ্জামও ব্যবহার করতে পারেননি অসহায় ওই নারীদ্বয়। দু’হাতে একজনের ‘ইউরিন’ ধরে তা অন্যজন পান করে জীবন বাঁচিয়েছেন।

৯৬ ঘণ্টা লিফটের ভেতর আটকে থাকার পর চীনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শানঝি প্রদেশের দমকল বাহিনী তাদেরকে উদ্ধার করেছে। উদ্ধার করেই তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়।

চিকিৎসার পর হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর তারা সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ৯৬ ঘণ্টা বেঁচে থাকার চরম পরিস্থিতির বর্ণনা দেন।

ডা. ইন তাদেরকে চিকিৎসা দেন। তিনি বলেছেন যে, লিফটে আটকে থাকা অবস্থায় মেয়ের কাঁধে ওঠেন তার মা। তারপর লিফটের ভেতরের তাপমাত্রা কম রাখার জন্য বাল্বও ভেঙে ফেলেন।

তিনি আরও জানান, তারপর তারা বাল্বের ভেতরের সামান্য লোহা টেনে বের করে লিফটের দরজার মাঝখানে ঢুকিয়েও দেন। তাতে সামান্য ফাঁকা জায়গা তৈরি হলে সেদিক দিয়ে কিছুটা বাতাস আসতে থাকে। মা ও মেয়ে পালাক্রমে লিফটের সামান্য সেই ফাঁকা জায়গা দিয়ে আসা অক্সিজেন তারা টেনে নিতেন।

এভাবে টানা চারদিন এবং তিনরাত তারা লিফটে আটকে ছিলেন। চারদিনের বেলায়, তারা লিফটের দরজা কিছুটা ফাঁক করে সাহায্যের আহ্বান জানান।

ডা. ইন বলেছেন যে, ওই দুই নারী বুদ্ধি করে একে অপরের ‘ইউরিন’ পান না করলে বেঁচে থাকাটাও হয়তো সম্ভব হতো না।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...