The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

তাদের জীবিকাই হলো রাস্তায় ঘুরে ঘুরে মৃতদেহ সংগ্রহ করা!

পা থেকে মাথা পর্যন্ত শক্তিশালী পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুপমেন্ট (পিপিই) পরে দুজন পেরুর রাজধানী লিমা ও তার আশপাশের অঞ্চল হতে এভাবেই কোভিড-১৯-এ মারা যাওয়া মানুষদের মৃতদেহ সংগ্রহ করেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ রাস্তায় ‘ডেথ, ডেথ, হেয়ার ইট কামস’ মাইকে গান গাইতে গাইতে নেস্তোর ভার্গাস এবং লুই হোসে সেরপা গাড়ি নিয়ে এগোতে থাকেন। আর তারা ঘুরে ঘুরে মৃতদেহ সংগ্রহ করেন!

তাদের জীবিকাই হলো রাস্তায় ঘুরে ঘুরে মৃতদেহ সংগ্রহ করা! 1

পা থেকে মাথা পর্যন্ত শক্তিশালী পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুপমেন্ট (পিপিই) পরে দুজন পেরুর রাজধানী লিমা ও তার আশপাশের অঞ্চল হতে এভাবেই কোভিড-১৯-এ মারা যাওয়া মানুষদের মৃতদেহ সংগ্রহ করেন। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে খুব কম মানুষই এমন কাজ করে থাকেন। তবে ভেনিজুয়েলা থেকে আসা এই দুই অভিবাসী এমন ঝুঁকির কাজটিই করছেন।

এই বিষয়ে ভার্গাস বলেন, ‘আমরা ভয় পেয়েছি যে আমরাও সংক্রমিত হয়ে ভাইরাসটি বাড়িতে নিয়ে আসতে পারি, যেখানে আমি, আমার স্ত্রী, সন্তান এবং মায়ের সঙ্গে বসবাস করি।’ তিনি তার সেলফোনে স্ত্রী-বাচ্চাদের নিয়ে একটি পারিবারিক ছবি স্ক্রিন সেভারও করে রেখেছেন।

অপরদিকে ২১ বছর বয়সী সেরপা পেরুতে যাওয়ার পূর্বে গ্রাফিক ডিজাইনের ছাত্র ছিলেন। সেইসঙ্গে তিনি ওয়েটারের কাজও করতেন। ৩৮ বছর বয়সী ভার্গাস ভেনিজুয়েলাতে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার কাজ করতেন। পেরুতে এসে গ্যাস সংস্থায় গাড়িচালকের চাকরি নেন। কোভিড-১৯ ভাইরাস ওই অঞ্চলজুড়ে ছড়িয়ে পড়লে মৃতদের কবর দেওয়ার কাজটি এক সময় শিল্পে পরিণত হয়। তারপরই তারা এই কাজে নেমে পড়েন। ভাইরাসটির প্রথম তিন মাস কাজ না থাকলেও দুজনে তারা এখন প্রতি মাসেই ৫০০ ডলার উপার্জন করেন। দিনে ১৯ ঘণ্টা, সপ্তাহে ৭ দিনই কাজ করে তারা এখন পেরুর ন্যূনতম মজুরির দ্বিগুণ আয় করে চলেছেন। এই করোনা ভাইরাসটিই বর্তমানে তাদের আয়ের একমাত্র উৎস।

তথ্যসূত্র: সিএনএন

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...