The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সমালোচনা হতে বাঁচতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি শিক্ষামন্ত্রীর!

তিনি শিক্ষামন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই নানা সমালোচনার মুখোমুখি হচ্ছেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী জগন্নাথ মাহাতো। অথচ তাঁর নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা মাত্র দশম শ্রেণী উত্তীর্ণ। বিরোধীদের কটাক্ষ, সাধারণ মানুষও শিক্ষামন্ত্রীকে সমালোচনা করেন। তাই তিনি এবার একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হলেন।

সমালোচনা হতে বাঁচতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি শিক্ষামন্ত্রীর! 1

তিনি মন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই নানা সমালোচনার মুখোমুখি হচ্ছেন। তাই সমালোচনা হতে বাঁচতে করলেন এক অবাক কাণ্ড। ৫৩ বছর বয়সে এসে পড়ালেখা পুনরায় চালু করতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির জন্য আবেদন করলেন।

ঝাড়খণ্ডের শিক্ষার উন্নতির জন্য পুরো রাজ্য জুড়ে নতুন মডেল স্কুল খুলছে সরকার। সোমবার সাংবাদিকদের সামনে সেই বিষয়ে ঘোষণা করতে আসেন শিক্ষামন্ত্রী জগন্নাথ মাহাতো। তখনই সকলকে চমকে দিয়ে ঘোষণা করেন, তিনি স্কুলে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হচ্ছেন আবার।

জানা গেছে, ৫৩ বছর বয়সী এই মন্ত্রী তার নিজেরই বিধানসভা, বোকারো জেলার দুমরি এলাকার নাবাডি হতে সরকারি ইন্টার-কলেজ দেবী মাহাতো মহাবিদ্যালয়ে আর্টস নিয়ে ভর্তিও হয়েছেন৷

ভর্তি হওয়ার পর জগন্নাথ জানিয়েছেন, এবার তিনি মন দিয়ে পড়াশোনাও করবেন। সেই সঙ্গে রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থাকেও আরও মজবুত করার চেষ্টা করবেন।

১৯৯৫ সালে চন্দ্রপুরার নেহেরু স্কুল হতে সেকেন্ড ডিভিশনে মাধ্যমিক পাশ করেন জগন্নাথ মাহাতো। তারপর লেখাপড়া করেননি তিনি।

তবে এতোদিন পরে কেনো এই সিদ্ধান্ত? জগন্নাথ বলেন, ‘আমি যেদিন শিক্ষামন্ত্রীর পদে শপথ নিই, অনেকেই তখন বলেছিলেন যে, একজন ক্লাস ১০ পাশ মানুষ রাজ্যের শিক্ষার অগ্রগতি নিয়ে কী কাজ করবেন৷

সেই সমস্ত মানুষদের জবাব দেওয়ার জন্যই আমি আবার ভর্তি হয়েছি পড়াশোনা করতে। পড়াশোনার কোনো বয়স হয় না। আমি ভালো রেজাল্ট করে তা দেখিয়ে দেবো।

শুধু তাই নয়, নিজে ক্লাস টেনের বিদ্যা নিয়ে কীভাবে রাজ্যের শিক্ষা দফতর সামলাবেন, সে প্রশ্নেরও মুখে তাকে বারবারই পড়তে হয়েছে নানা সময়। তাই সব ভুলে গিয়ে পড়াশোনাটা আবার নতুন করে করবেন বলে ঠিক করেছেন তিনি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...