The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বিশ্বে ২০৫০ সাল নাগাদ ১০০ কোটি মানুষ বাস্তুচ্যুত হতে পারে

বিশ্বের পরিবেশগত হুমকির বিষয়ে এক নতুন গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অত্যন্ত দ্রুততম জনসংখ্যা বৃদ্ধি, খাদ্য এবং পানির অভাব ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় বৃদ্ধির কারণে ২০৫০ সাল নাগাদ বিশ্বে ১০০ কোটিরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হতে পারে।

বিশ্বে ২০৫০ সাল নাগাদ ১০০ কোটি মানুষ বাস্তুচ্যুত হতে পারে 1

বিশ্বের পরিবেশগত হুমকির বিষয়ে এক নতুন গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে বলে এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ এবং শান্তিসূচক নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান ইনিস্টিটিউট ফর ইকোনোমিকস অ্যান্ড পিস (আইইপি) নামক একটি প্রতিষ্ঠান। ‘ইকোলোজিক্যাল থ্রেট রেজিস্টার’ শিরোনামের প্রতিবেদনটিতে জাতিসংঘ এবং অন্যান্য সূত্রের নিকট হতে সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে ৮টি পরিবেশগত হুমকি চিহ্নিত করা হয়। একই সঙ্গে কোন দেশ ও অঞ্চল সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মুখে রয়েছে তাও দেখানো হয়।

জনসংখ্যা বৃদ্ধির পূর্বাভাসে বলা হয়েছে যে, ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের জনসংখ্যা প্রায় এক হাজার কোটিতে গিয়ে দাঁড়াবে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে সম্পদ নিয়ে কাড়াকাড়িও বাড়বে। আর তাই এটি সহিংসতাকে উস্কে দেবে। এগুলো সাব-সাহারা, মধ্য এশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যে এই ঝুঁকির মুখে থাকা প্রায় ১২০ কোটি মানুষকে ২০৫০ সালের মধ্যে অভিবাসী হতে শেষ পর্যন্ত বাধ্য করবে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ৫০ বছর পূর্বে বিশ্বে সুপেয় পানির পরিমাণ যতোটুকু ছিল ২০৫০ সালে তার ৬০ শতাংশ কমে আসবে। আগামী ৩০ বছরের মধ্যে খাদ্যের চাহিদা বেড়ে যাবে ৫০ শতাংশ। ভারত এবং চীনের মতো কয়েকটি দেশ সবচেয়ে বেশি পানি সংকটের হুমকির মুখে।

আইইপির প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ কিলেলা এই বিষয়ে বলেন, ‘পরিবেশগত হুমকি বৈশ্বিক শান্তির জন্য একটি গুরুতর চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে। আগামী ৩০ বছরের মধ্যে জরুরি বৈশ্বিক সহযোগিতার অভাবে খাদ্য এবং পানি প্রাপ্তির সুবিধা আরও হ্রাস পাবে। পদক্ষেপের অভাবে গণঅসন্তোষ, দাঙ্গা এবং সংঘাত আরও বেশি বাড়বে।’

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...