The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কর্মজীবনে সফলতা পেতে যে বিষয়গুলো মেনে চলতে হবে

নিজের দোষ ও গুণ সম্পর্কে জেনে সেই মতো যদি শ্রম দেওয়া যায় তাহলে কর্মজীবনের গ্রাফ কখনই নিম্নমুখি হবে না

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অফিসে সব মানুষ কি এক রকম হয়? মোটেও না! এক এক জনের স্বভাব, কর্মক্ষমতা, এমনকি কোনও বিষয়কে বোঝার ক্ষমতাও হয় এক এক জনের এক এক রকম।

অনেকেই দারুন কাজ করেন। আবার কেও কেও ওয়াকিবহালই থাকেন না তার সুপ্ত ক্ষমতা সম্পর্কে। নিজের দোষ ও গুণ সম্পর্কে জেনে সেই মতো যদি শ্রম দেওয়া যায় তাহলে কর্মজীবনের গ্রাফ কখনই নিম্নমুখি হবে না। যদি আপনি আপনার কাজে এক নম্বরে পৌঁছাতে চান, তাহলে এই লেখাটি অবশ্যই আপনাকে পড়তেই হবে।

এই লেখায় এমন কিছু নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করা হবে যা মেনে চললে আপনি হয়ে উঠতে পারবেন একজন সুপার অ্যাকটিভ। তাহলে পড়ে ফেলুন এই লেখাটি।

কাজ সাজিয়ে নিন গুরুত্ব অনুসারে

কোনও কাজ শুরু করার আগে আপনাকে মনে মনে একটা ডেডলাইন ঠিক করে নিতে হবে। আপনি প্রতিবার নিজেকে হারানোর চেষ্টা করুন। এমনটা তখনই সম্ভব হবে যখন আপনি খুচরো কাজগুলি আগে থেকেই করে রাখতে পারবেন। যেমন সব সময় টেমপ্লট মেল রেডি রাখবেন, এমনটা করলে দেখবেন অনেকটা সময়ও বাঁচবে।

সব কাজ আগে থেকে প্লান করে রাখুন

নিখুঁতভাবে কাজ করার জন্য একটি নির্দিষ্ট প্লান থাকাটা খুবই জরুরি একটি বিষয়। তবে একেবারে অনেক কাজের লিস্ট কিংবা প্লান বানিয়ে ফেলবেন না। এমনটা করলে আপনার কর্মক্ষমকা আরও কমবে। এর পরিবর্তে ছোট ছোট টার্গেট করে নিন।

নিজের কাজ সম্পর্কে সচেতন হতে হবে

একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করার চেষ্টা করতে হবে। অফিসে থাকাকলীন ফোকাস যেনো এদিক-ওদিক না হয়ে যায়। প্রসঙ্গত, কাজ করতে করতে মাঝে মাঝে অল্প সময়ের ব্রেকও নিতে হবে। কাজের মধ্যে ব্রেক নিয়ে দেখবেন কাজের স্পিড এবং দক্ষতা, দুইই আরও বাড়বে।

কাজ সম্পর্কে মনে মনে ছকে ফেলুন

যে কাজেই হাত দিন না কেনো সেটি নিয়ে একটু ভেবে নিন আগে থেকে। আসন্ন কাজটির বিষয়ে আপনার পুরো জ্ঞান ও বিষয় বস্তু সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণাও থাকবে। তাহলে সেটি জটজলদি শেষও করতে পারবেন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...