The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এবার যৌথ নায়কের ছবিতে মাহি

মাহির বিপরীতে থাকা দুজন নায়কের মধ্যে একজন চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিচালক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মাহিয়া মাহিকে নিয়ে আবারও পর্দায় হাজির হতে চলেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। এই ছবির নাম ‌‘যাও পাখি বলো তারে’। তবে মাহির বিপরীতে থাকছেন দুই জন নায়ক।

এবার যৌথ নায়কের ছবিতে মাহি 1

মাহির বিপরীতে থাকা দুজন নায়কের মধ্যে একজন চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিচালক। তিনি হলেন আজাদ আদর চৌধুরী।

গত ২৮ ডিসেম্বর তাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তিও হয়েছে নির্মাতার। এর মাধ্যমে চতুর্থবারের মতো মাহিকে নিয়ে কাজ করতে চলেছেন নির্মাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিক।

এই নির্মাতা ছবির গল্প সম্পর্কে বলেছেন, ‘এটি মূলত অফ ট্র্যাকের ছবি। আমি কখনও এমন কোনো সিনেমা তৈরি করিনি। সম্পূর্ণ গ্রাম্য পটভূমির গল্প নিয়ে এটি নির্মিত হবে। প্রেম, বিরহ এবং বিচ্ছেদ থাকছে মূল বিষয়টিতে। অনেক দিন বাংলাদেশে নিখুঁত গ্রামের ছবি নির্মাণও করা হয়নি। চেষ্টা করছি সেটি করার জন্য।’

ছবিটির গল্পে রয়েছে মাহি খুবই সম্ভ্রান্ত পরিবারের মেয়ে। এলাকায় তার পরিবারের বেশ ভালো প্রভাব। অপরদিকে আদর একজন সাধারণ দর্জি। মেয়েদের জামাকাপড় বানানোতে তার বেশ সুনামও রয়েছে। সেই কারণে আদরের কাছে যায় মাহি।

পরিচালক জানিয়েছেন, ব্যতিক্রমি বিষয় হলো গল্পে আরও একটি চরিত্র থাকবে। চেষ্টা করা হচ্ছে পরিচিত মুখ রাখতে।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে ‘মনপুরা’ চলচ্চিত্রটি মুক্তি পেয়েছিল। গ্রামীণ পটভূমির সেই চলচ্চিত্রের ‘যাও পাখি বলো তারে’ গানটি খুবই জনপ্রিয়তা পায়। সেই গান থেকেই মোস্তাফিজুর রহমান মানিক তার নতুন ছবির নাম রেখেছেন ‘যাও পাখি বলো তারে’।

বিষয়টি সম্পর্কে নির্মাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিক সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘‘এটি ‘মনপুরা’ ছবির সিক্যুয়েল টাইপ কিছু নয়। ওই গানটি আমার ভীষণ পছন্দের। নামের মধ্যে শেকড়ের একটা গন্ধ রয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো গল্পের সঙ্গে নামটা বেশ ভালো মেলে।’’

‘যাও পাখি বলো তারে’ চলচ্চিত্রের গল্প ও চিত্রনাট্য করেছেন আসাদ জামান। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি বগুড়ায় এই ছবিটির শুটিং শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছেন নির্মাতা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...