The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

খাদ্য সঙ্কট মোকাবিলায় চীনে অদ্ভূত নির্দেশ: বেশি খেলে লাখ টাকা জরিমানা!

‘অপারেশন এম্পটি প্লেট’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ করোনা মহামারি যেতে না যেতেই বর্তমানে শস্য সংকটে পড়েছে চীন। খাদ্য সঙ্কট মোকাবিলায় চীনে একটি নতুন কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এই কার্যক্রমটির নাম দেওয়া হয়েছে, ‘অপারেশন এম্পটি প্লেট’।

খাদ্য সঙ্কট মোকাবিলায় চীনে অদ্ভূত নির্দেশ: বেশি খেলে লাখ টাকা জরিমানা! 1

এই অপারেশনের উদ্দেশ্যই হলো রাতে কম খাবার খাওয়া ও খাবারের অপচয় সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করে তোলা। তাছাড়াও চীনা সরকার একটি নতুন নীতিও বাস্তবায়ন করেছে। এর আওতায় মানুষজন ও হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোকে খাবার নষ্ট করার জন্য জরিমানা গুণতে হবে।

চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং ‘অপারেশন এম্পটি প্লেট’ শুরু করার পর জানিয়েছেন যে, এর উদ্দেশ্যই মানুষকে যতোটা প্রয়োজন ঠিক ততোটাই খাবার খেতে উদ্বুদ্ধ করা।

বলা হচ্ছে যে, খাবার নষ্ট করার দিক দিয়ে চীন নাকি অনেক এগিয়ে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন বেশ কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যায়, যেখানে দেখা যাচ্ছে যে, এক ব্যক্তি এক সঙ্গে ১০টি বার্গার ও পিজ্জা খাচ্ছেন।

উল্লেখ্য যে, চীনে ‘ওভার ইটিং’ অর্থাৎ একবারে কে কতো খেতে পারে এমন একটি চ্যালেঞ্জ দারুণভাবে জনপ্রিয়। বর্তমানে অনেকেই এই চ্যালেঞ্জ নিয়ে বেশি খাওয়ার ভিডিও বানাচ্ছিলেন। তবে এখন থেকে সেটি আইনের মাধ্যমে পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা হচ্ছে।

‘অপারেশন এম্পটি প্লেট’-এর আওতায় চীনে বেশি খাওয়া বে-আইনি কাজ হিসেবে বিবেচিত হবে। অতিরিক্ত খাবার খাওয়ার জন্য প্রায় ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে বলে জানানো হয়। রেস্তোরাঁগুলো যদি এই আইন লঙ্ঘন করে তবে তাদের উপরও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

চীনে এই চ্যালেঞ্জের ভিডিওগুলো প্রায়শই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। ১০টি পিজ্জা খাবারের চ্যালেঞ্জ নেওয়া হয়। আইনের আওতায় বলা হয়েছে যে, যেসব টিভি চ্যানেল এসব দৃশ্য কিংবা চ্যালেঞ্জ প্রমোট করবে, তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বর্তমানে যেহেতু চীন শস্য সংকটে রয়েছে, তাই খাদ্য অপচয় রোধে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়। বলা হয়ে থাকে যে, প্রতি বছর চীনে অন্তত ৩ কোটি টন খাবার নষ্ট হয়। অর্থাৎ মোট উৎপাদনের ৬ শতাংশ শস্য নষ্ট হয়ে থাকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...