The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গরিলা করোনায় আক্রান্ত!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান দিয়েগো সাফারি পার্কের চিড়িখানায় বেশ কয়েকটি গরিলা করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে বলে খবর বেরিয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গরিলা করোনায় আক্রান্ত! 1

পার্কের নির্বাহী পরিচালক লিসা পিটারসন সোমবার মার্কিন বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন যে, একসঙ্গে থাকা ৮টি গরিলার দেহে ভাইরাস রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর মধ্যে কয়েকটির কাশিও রয়েছে বলে জানান তিনি।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ৬ ডিসেম্বর হতে জনসাধারণের জন্য বন্ধ রয়েছে সান দিয়েগোর ওই জু সাফারি পার্ক। তারপরও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কৃষি বিভাগের ন্যাশনাল ভেটেরিনারি সার্ভিসের পরীক্ষাগারে ৩টি গরিলার শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। পরে সেখানকার ৮টি গরিলার সব কয়টির নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়।

ধারণা করা হচ্ছে যে, পার্কের রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীদের একজনের কাছ থেকেই গরিলাগুলোর দেহে করোনা সংক্রমিত হতে পারে। ওই কর্মীর করোনা শনাক্ত হলেও তার কোনো রকম লক্ষণ ছিলো না। যদিও গরিলার আশেপাশে যাওয়ার সময় তিনি মাস্ক পরেই ছিলেন।

পার্কটির পরিচালক লিসা পিটারসন সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, করোনা শনাক্ত হলেও সর্দি ও কাশি বাদ দিলে গরিলাগুলো ভালোই রয়েছে। তিনি আরও জানান, সবকটিকেই পৃথক রাখা হয়েছে। তারা খাবার ও পানিও গ্রহণ করছে। আশা করা হচ্ছে যে, এই গরিলাগুলো সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যাবে।

মানুষের ডিএনএ’র সঙ্গে প্রায় ৯৮ শতাংশ মিল রয়েছে গরিলাগুলোর। গবেষণায় দেখা গেছে যে, মানুষ ছাড়াও আরও কিছু প্রাণী করোনা সংক্রমণে আক্রান্ত হতে পারেন। তবে গরিলার ওপর করোনার প্রভাব কতোটা মারাত্মক হতে পারে তা এখনও জানা যায়নি। ভাইরাসটির সংক্রমণে এ পর্যন্ত পৃথিবী জুড়ে প্রায় ২০ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটেছে।

উল্লেখ্য, সান দিয়েগো পার্কে যেসব গরিলা করোনায় আক্রান্ত হয়েছে সেগুলো ওয়েস্টার্ন লোল্যান্ড গরিলা। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ডের তথ্য মতে, রোগ ও পাচারের কবলে পড়ে বিগত ২০ বছরে এই প্রজাতির ৬০ শতাংশ গরিলা বিলীন হয়ে গেছে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...