The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পরীক্ষা ছাড়াই এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। আজ শনিবার, ৩০ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফলাফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।

২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ 1

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পরীক্ষা ছাড়াই এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। আজ শনিবার, ৩০ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফলাফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।

করোনা মহামারির জন্য ২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছিলো। পরীক্ষা নেওয়ার পরিবর্তে জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফল মূল্যায়ন করে এইচএসসির ফলাফল নির্ধারণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

মোবাইল ফোনে যেভাবে এইচএসসির ফল জানা যাবে

মোবাইল ফোনের খুদেবার্তার মাধ্যমে এবারের ফলাফল পেতে চাইলে ফলাফল প্রকাশের পূর্বেই প্রি-রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে HSC< >Board name (First 3 letter) <> Roll<>2020 টাইপ করে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফল প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই প্রি-রেজিস্ট্রেশনকৃত পরীক্ষার্থীদের মোবাইল নম্বরে তাদের ফলাফল তখন পৌঁছে যাবে।

এছাড়াও টেলিটক ওয়েবসাইট www.educationboardresults.gov.bd থেকেও ফলাফল দেখা যাবে। সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকেও জানা যাবে ফলাফল।

উল্লেখ্য, গত বছর (২০২০ সাল) ১১টি শিক্ষা বোর্ডের ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন শিক্ষার্থীর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেওয়ার কথা। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল ওই বছরেরই (২০২০ সাল) ১ এপ্রিল। তবে করোনা ভাইসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করায় ১৭ মার্চ হতে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। তারপর গত ৭ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনীর মতোই এইচএসসি পরীক্ষাও বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে। তখন শিক্ষামন্ত্রী জানান, জেএসসি ও এসএসসির ফলাফলের গড় করেই ২০২০ সালের এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হবে। জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ ও এসএসসির ফলকে ৭৫ শতাংশ বিবেচনায় নিয়েই উচ্চ মাধ্যমিকের ফল ঘোষণা করা হবে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের

Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...