The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

৪ মাস বয়সী একটি গরুর দাম ২ কোটি ৬১ লাখ টাকা!

গরুটির নাম ‘পস স্পাইস’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ৪ মাসের একটি গরু কতোই দামে বিক্রি হতে পারে। বড়ো জোর ২০, ৩০ বা ৪০ হাজার টাকা। এই গরুটির দাম শুনলে আপনার চোখ কপালে উঠবেই। নিলামে গরুটির দাম উঠেছে ২ কোটি ৬১ লাখ টাকা!

৪ মাস বয়সী একটি গরুর দাম ২ কোটি ৬১ লাখ টাকা! 1

এই দামি গরুটির নাম হলো ‘পস স্পাইস’। তার বয়স মাত্র ৪ মাস। মধ্য ইংল্যান্ডে গরুটির জন্ম। নিলামে এই গরুটির দাম উঠেছে ২ কোটি ৬১ লাখ টাকা। দামের নিরিখে ইতিমধ্যেই বিশ্বরেকর্ড করে ফেলেছে ‘পস স্পাইস’ নামে গরুটি। ইতিপূর্বে এতো দামে বিশ্বে কোনো গরু বিক্রি হয়নি।

এই গরুটির মালিক ভিক্টোরিয়া বেকহ্যামের ভক্ত। সে কারণে জন্মের পর এর নামও রেখেছেন পস স্পাইস। গায়িকা ভিক্টোরিয়া বেকহ্যাম প্রথমে ‘স্পাইস গার্লস’র সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। মূলত স্পাইস গার্লস একটি গানের ব্যান্ড। ওই ব্যান্ডের হয়েই গান করতেন ভিক্টোরিয়া। তখন তিনি পরিচিত ছিলেন পস স্পাইস হিসাবেই।

এই গরুর মায়ের নাম ছিলো ‘জিঞ্জার স্পাইস’। ‘জিঞ্জার স্পাইস’ এবং স্পাইস গার্লসের এক গায়িকার নাম ছিলো। ক্রিস্টাইন উইলিয়ামস ও তার মৃত বাবা ডন দু’জনে মিলে গরুর খামার তৈরি করেন। ১৯৮৯ সাল হতে খামারটি চালু রয়েছে।

খামারের গরু প্রতি বছরই নিলামে ওঠে। এই বছরও তাই হয়েছে। এই বছর যে দাম উঠেছে তা কোনো বছরই ওঠেনি। ক্রিস্টাইনের কাছে এটা সত্যিই এক স্বপ্নের মতো।

এতো দাম দিয়ে কে কিনলেন এই গরুটি? ম্যাঞ্চেস্টার ও কামব্রিয়ার কয়েকজন গবাদিপশু কারবারিদের যৌথ উদ্যোগে গরুটি কেনা হয়েছে। তবে তারা গরুটিকে আবারও নিলামে বিক্রি করে লাভ করবেন, নাকি অন্য কিছু করবেন তা অবশ্য জানা যায়নি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...