The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এখন থেকে স্ত্রীকে ঘরের কাজের জন্য বেতন দিতে হবে!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ একজন গৃহিনী ঘরের সবকিছুই করে থাকেন। রান্না করা, ধোঁয়া-মোছা, সন্তানদের লালন-পালনসহ অসংখ্য কাজ তাকে করতে হয়। এরজন্য এতোদিন পারিশ্রমিক পেতেন না তারা। এবার পারিশ্রমিক পাবেন গৃহিনীরা!

এখন থেকে স্ত্রীকে ঘরের কাজের জন্য বেতন দিতে হবে! 1

তবে এই পারিশ্রমিক পাবেন চীনের গৃহিনীরা! এখন থেকে গৃহস্থালির কাজের জন্য স্ত্রীকে অর্থ দিতে হবে বলে চীনের বেইজিংয়ের একটি আদালত রায় দিয়েছে। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানা যায়।

বেইজিংয়ের আদালতের এই রায়কে ঐতিহাসিক হিসেবেই দেখা হচ্ছে। কেনোনা আদালতের এই রায়ের কারণে একজন নারী তার ৫ বছরের বৈবাহিক জীবনে গৃহস্থালির কাজের পারিশ্রমিক হিসেবে ৫০ হাজার ইউয়ান করে পাবেন। যা বাংলাদেশী টাকায় দাঁড়াচ্ছে সাড়ে ৬ লাখ টাকারও বেশি!

আদালতের নথি সূত্রে দেখা গেছে, চেন নামে এক ব্যক্তি ওয়াং নামে এক নারীকে বিয়ে করেন। তবে গত বছর তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ চেয়ে আদালতে আবেদন করেন চেন। ওয়াং বিবাহ বিচ্ছেদে মোটেও রাজি ছিলেন না। পরে চেনের বিরুদ্ধে আর্থিক ক্ষতিপূরণের জন্য মামলা করেন ওয়াং। তার দাবি হলো, বৈবাহিক জীবনে ঘরের কোনো রকম কাজই করেননি চেন। এমনকি সন্তানদের কখনও দেখভালও করেননি তিনি।

দীর্ঘ শুনানির পর রায়ে বেইজিংয়ের ফাংশান জেলা আদালত চেনের প্রতি ৫০ হাজার ডলার ওয়াংকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে মাসিক খোরপোষ বাবদ প্রতিমাসে আরও দুই হাজার ডলার দেওয়ারও নির্দেশ দেয় আদালত।

আদালত বলেছে, বিবাহবিচ্ছেদের পর সাধারণত দুজনের যৌথ পরিমাপযোগ্য সম্পত্তি ভাগাভাগি হয়ে থাকে। গৃহকর্ম অপরিমাপ্য সম্পত্তি, তারও একটা মূল্য রয়েছে।

তবে রায় নিয়ে চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উইবো সরগরম ফেলে দিয়েছে, চলছে নানা তর্ক-বিতর্ক। অনেকেই বলছেন, ৫ বছরের গৃহকর্মের জন্য ৫০ হাজার ইউয়ান খুবই কম একটা মজুরি। কারণ একজন আয়াকেও ৫ বছরে এর চেয়ে অনেক বেশি মজুরি দিতে হয়।

আবার অনেকেই বলছেন যে, পুরুষদের উচিত গৃহকর্মে নারীদের আরও বেশি করে সহায়তা করা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...