The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

আগ্নেয়গিরির লাভায় ডিম ভাজতে গিয়ে যা ঘটলো

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ওমলেট খাওয়ার বিষয়টি নতুন নয়। পেটে খিদে লাগলে বা না লাগলেও স্রেফ মনের খেয়ালে খাদ্যরসিকরা ডিম ভেজে খেতে ভীষণ পছন্দ করেন। কিন্তু আগ্নেয়গিরির লাভায় ডিম ভাজতে গিয়ে যা ঘটলো এক যুবকের।

আগ্নেয়গিরির লাভায় ডিম ভাজতে গিয়ে যা ঘটলো 1

বনভোজন বা পিকনিক, যে নামেই ডাকা হোক না কেনো, ওমলেট সেখানে লোভনীয় এক চটজলদি পদ তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে যতোই খেয়াল চাপুক, আগ্নেয়গিরির লাভার মধ্যে প্যান চাপিয়ে তাতে ডিমভাজা খাওয়ার কথা কে আর ভাবতে পারেন বলুন? যতোই অবাস্তব মনে হোক না কেনো, এমন কাণ্ডই ঘটালেন আইসল্যান্ডের জনৈক যুবক। যদিও তার শেষরক্ষা হলো না।

লাভার গণগণে আঁচে ওমলেট ও শুয়োরের মাংস রান্না করার মতলব করেছিলেন তিনি। যদিও তারপর কী হলো? ঘটনাটি তাহলে জানা যাক। আইসল্যান্ডের ফাগরাডালসফজাল আগ্নেয়গিরি ৮০০ বছর পর আবার জেগে উঠেছে গত ১৯ মার্চ। ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাতের কারণে লাভা ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্রই। যার ধাক্কায় মাটিতে রীতিমতো কাঁপুনি দেখা যায়। তবে এ পর্যন্ত এর থেকে স্থানীয় জনতাদের তেমন ভয়ের কিছু নেই বলে মনে করা হয়। লাভা অবশ্য ছড়িয়ে পড়েছে প্রায় ২০০টি ফুটবল মাঠের সমান আয়তনের এলাকায়। আকাশ হয়ে উঠেছে একেবারে টকটকে লাল।

গত কয়েকদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে ওই অগ্ন্যুৎপাত এবং লাভা নিঃসরণের নানা ছবি, ভিডিও। বিজ্ঞানী, সাংবাদিক হতে শুরু করে স্থানীয় জনতার ক্যামেরায় তোলা নানা ছবি আপাতত ভাইরাল নেট দুনিয়ায়। যারমধ্যে একটি হলো ড্রোনে তোলা অগ্ন্যুৎপাতের ভিডিওটি। আকাশপথ থেকে তোলা ওই ভিডিও দেখে চমকে উঠেছেন সবাই। এমনই নানা ভিডিও রয়েছে ভাইরাল হওয়া ভিডিওর মধ্যে। তবে এই তালিকার সাম্প্রতিকতম ভিডিওটি নিঃসন্দেহে বিচিত্র এবং অভূতপূর্ব!

সেখানে এক যুবককে দেখা গেছে শুয়োরের মাংস এবং ওমলেট রান্না করতে তিনি বেছে নিয়েছেন লাভাস্রোতকেই! ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি প্যানে রান্না চাপাতে দেখা যাচ্ছে তাকে। তবে দুর্ভাগ্যজনক ভাবে শেষ পর্যন্ত সেই রান্না আর তার হয়ে ওঠেনি। কারণ হলো আস্ত প্যানটিকেই গিলে খেয়ে নিয়েছে লাভার আগুন! চোখের সামনে তা দেখে হতাশ হয়ে ওই যুবক মন্তব্য করেন, ‘আমার দলের ছেলেদের খাবার বানাচ্ছিলাম। তবে সবই নষ্ট হয়ে গেলো। রইল পড়ে কেবল স্যান্ডউইচ ও পানি!’

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...