The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

৬ বছরের ভাই ৪ বছরের বোনকে বাঁচিয়ে ঐতিহাসিক ‘বক্সিং বেল্ট’ পেলো!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উয়োমিং রাজ্যের বাসিন্দা ৬ বছর বয়সী ব্রিজার ওয়াকার। মাত্র ৬ বছর বয়সী ব্রিজার তার ৪ বছর বয়সী বোনকে বাঁচাতে নিজের জীবন বাজি রেখেছিলো। হিংস্র কুকুরের হাত থেকে তার বোনকে বাঁচাতে গিয়ে ব্রিজারের মুখে ৯০টি সেলাই করতে হয়েছে!

৬ বছরের ভাই ৪ বছরের বোনকে বাঁচিয়ে ঐতিহাসিক ‘বক্সিং বেল্ট’ পেলো! 1

তার এমন একটি ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল। তারপর হতে পুরো বিশ্বের মানুষ ব্রিজারকে প্রশংসায় ভাসিয়ে দিচ্ছেন। এমনকি হলিউডের নামিদামি সুপার হিরোরাও ব্রিজারের প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে ‘রিয়েল হিরো’ উল্লেখ করে পোস্ট দিয়েছেন।

আর ব্রিজারের কৃতিত্বের সম্মাননা দিয়েছে ওয়ার্ল্ড বক্সিং কাউন্সিল (ডাব্লিউবিসি)। তাকে আজীবন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে এই সংস্থাটি। সেদিনের সাহসিকতার জন্য বিশ্বের সেরা যোদ্ধার অফিশিয়াল ডাব্লিউবিসি ঐতিহাসিক রেকর্ডেও নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এমনকি ইতিহাসের সর্বাধিক প্রাপ্য বেল্টটি ব্রিজার ওয়াকারকে দেওয়া হয়।

ঘটনাটি এক বছর আগের। একটি জার্মান শেফার্ড কুকুর ব্রিজারের বোনকে আক্রমণ করলে ব্রিজার কোনো আগ-পর না ভেবেই বোনকে রক্ষার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েন। বোনকে বাঁচাতে সে নিজেকে এগিয়ে দেন। ওই কুকুরটি তার গালে থাবা বসায়। এতে ভয়ানকভাবে জখম হয় ব্রিজারের মুখ। তবে তারপরও সে পিছিয়ে আসেনি। বোনকে বাঁচিয়েছে হিরোর মতোই। না হলে আরও বড় বিপদ হতে পারতো। তবে এক মিনিটের জন্যও সে ভয় পায়নি।

ওই ঘটনার পর আহত হয় ব্রিজার। দুই ঘণ্টার সার্জারি হয়। তবে তাতে তার বিন্দুমাত্রও পরোয়া নেই। উল্টো সে নিজের বাবাকে বলেছে, ‘এই কুকুরের হামলায় যদি কারও মৃত্যু হতো তাহলে সেটা আমিই হতাম, বোন নয়।’ এমন কথা শোনার পর ব্রিজারের বাবা আর একটি কথাও বাড়াতে পারেননি।

তথ্যসূত্র: সিএনএন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...