The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ‘বিক্ষোভের মুখে’ উচ্চ মাধ্যমিকের সব শিক্ষার্থী পাস!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে পড়াশোনা করে নয়, বিক্ষোভের মুখে পাস পেয়ে গেলো উচ্চ মাধ্যমিকের সব শিক্ষার্থী!

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ‘বিক্ষোভের মুখে’ উচ্চ মাধ্যমিকের সব শিক্ষার্থী পাস! 1

২ আগস্ট এই সিদ্ধান্ত জানায় রাজ্যের উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। কয়েকদিন আগেই পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছিল এই শিক্ষা সংসদ। দেখা যায় তাতে পাসের হার ছিল ৯৮ শতাংশ। যে দুই শতাংশ ফেল করেছিল (প্রায় ১৮ হাজার শিক্ষার্থী) তা নিয়েই রাজ্য জুড়ে শুরু হয়ে যায় বিক্ষোভ। তাতে অকৃতকার্য শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন তোলেন যে, পরীক্ষাই যেখানে হলো না, সেখানে আবার ফেল কিসের? এই অবস্থায় হয়তো সকলকে পাস করিয়ে দিতে হবে নতুবা নতুন করে পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

এই ইস্যুতে পরীক্ষার ফল ঘিরে পুরো রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। সেই পরিস্থিতিতে অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের পাস করিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ।

ওইদিন (সোমবার) দুপুরে বিদ্যাসাগর ভবনে সাংবাদিক সম্মেলন করে সংসদের সভানেত্রী মহুয়া দাস ১০০ শতাংশ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার্থীকে পাস করিয়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। মহুয়া বলেন যে, আমাদের সরকার মানবিক সরকার। তাই কোভিড পরিস্থিতি বিবেচনা করে সব শিক্ষার্থীকেই পাস করিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তবে মহুয়া দাবি করেন যে, সবাইকে পাস করিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে এতোদিন ধরে চলে আসা বিক্ষোভের কোনো ভূমিকাই ছিল না।

তিনি আরও বলেন, মাধ্যমিকের ৪০ শতাংশ, একাদশের ৬০ শতাংশ ও প্র্যাক্টিক্যালে প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের মূল্যায়ন করা হবে, সে কথা আগেই স্কুলগুলোকে জানানো হয়েছিল। সেই হিসেবে স্কুল যা পাঠিয়েছিল, তার ভিত্তিতেই মূল্যায়ন করেছিলো সংসদ। তবে কোথাও কোনো রকম অসঙ্গতি চোখে পড়লে, পুনর্মূল্যায়নের আবেদন জানানোর সুযোগও দেওয়া হয়েছিলো, যাতে কলেজে ভর্তি হতে কোনো রকম সমস্যায় না পড়তে হয় শিক্ষার্থীদেরকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...