The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

আফগানিস্তানের সাবেক মন্ত্রী এখন পিৎজা ডেলিভারি বয়!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ তালেবানের ভয়ে কয়েক বছর আগেই পালিয়েছিলেন আফগানিস্তানের সাবেক মন্ত্রী সৈয়দ আহমেদ শাহ সাদাত। বর্তমানে তিনি থাকেন জার্মানির লাইপজিগ শহরে। তাঁর পেশা হলো বাড়ি বাড়ি পিৎজা ডেলিভারি দেওয়া!

আফগানিস্তানের সাবেক মন্ত্রী এখন পিৎজা ডেলিভারি বয়! 1

তাঁর এই পেশার কারণে বাইসাইকেলে চড়ে পুরো শহর ঘুরে বেড়াতে হয় তাঁকে। লাইপজিগের এক সংবাদপত্রে এই খবর জানানো হয়।

২০১৮ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানের একজন মন্ত্রী ছিলেন সাদাত। জার্মানিতে পালানোর কয়েক মাস পরে তাঁর সঞ্চিত সব অর্থ ফুরিয়ে যায়। বাধ্য হয়েই তিনি পিৎজা ডেলিভারি বয়ের কাজ শুরু করেন। সাদাত জানিয়েছেন, “আমি এখন খুব সাধারণভাবে জীবন যাপন করি। জার্মানিতে আমি অত্যন্ত নিরাপদ। আমি এখানে পরিবারের সঙ্গেই থাকি। আমি অর্থ জমিয়ে জার্মান ভাষার ওপর একটা কোর্স করতে চাই।”

সৈয়দ আহমেদ শাহ সাদাত জানিয়েছেন, জার্মানিতে এসে তিনি অনেকগুলি চাকরির জন্য আবেদন করেন। তিনি চেয়েছিলেন, টেলিকম শিল্পে কাজ করার জন্য। তবে কোথাও সুযোগ না পেয়ে পিৎজা ডেলিভারির কাজ নেন তিনি।

তালেবানরা কাবুলের দখল নেওয়ার পর হতেই হাজার হাজার আফগান দেশ ছাড়তে চাইছেন। ভারত, ব্রিটেন, আমেরিকা নিজেদের দেশের নাগরিকদের উদ্ধার করে ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছিলেন, যতোদিন না আফগানিস্তান থেকে উদ্ধারকাজ শেষ হবে, ততোদিন সেখানে মার্কিন সেনা মোতায়েন থাকবে। পরে তালেবানের সঙ্গে চুক্তি মাফিক ৩১ অগস্ট অবধি সময় ধার্য হয়েছে। তালেবান মুখপাত্র জানিয়েছে, ওই দিনের মধ্যেই সেনা প্রত্যাহার করতে হবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে। বাইডেন এই শর্তে প্রথমে রাজি হলেও এখন উদ্ধারকাজের সময়সীমা আরও বাড়ানোর কথা চিন্তা করছেন। তাতেই হুঁশিয়ারি দিয়ে তালেবান জানিয়ে দেয় যে, নির্ধারিত দিনের থেকে আর একদিনও বেশি সময় দেওয়া যাবে না।

বর্তমানে কাবুলের হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সুরক্ষায় রয়েছে ৬ হাজার মার্কিন সেনা। বাইডেন বলেছেন যে, আফগানিস্তান থেকে উদ্ধারকাজ এখনও অবধি ইতিহাসের সবচেয়ে কঠিনতম একটি কাজ। সামান্য ভুলেই তালেবানের গুলির মুখে পড়তে হতে পারে বাসিন্দারা। আবার মার্কিন সশস্ত্র বাহিনীর ঝুঁকিও রয়েছে। তথ্যসূত্র : দ্য ওয়াল।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...