The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ঘরের ফার্নিচারের যত্ন নেবেন যেভাবে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মানুষের রুচির পরিচয় বহন করে তার ঘরের ফার্নিচার। সেজন্য অনেকেই খুব দামি ফার্নিচার কেনেন। তবে শুধু ফার্নিচার কিনলেই হবে না, এর যত্নও নিতে হবে। ঘরের ফার্নিচারের যত্ন কিভাবে নেবেন জেনে নিন।

ঘরের ফার্নিচারের যত্ন নেবেন যেভাবে 1

আজ দেখে নিন কিভাবে ফার্নিচারের যত্ন নেবেন:

# যেমন ঘরের যে অংশটিতে বেশি রোদ পড়ে সেখানে কাঠের আসবাব না রাখায় ভালো। প্রতি বছর অন্তত একবার হলেও আপনার ঘরের ফার্নিচার পলিশ করিয়ে নিন। ডাইনিং টেবিলে কখনই গরম জিনিস রাখবেন না। অবশ্যই টেবিল ক্লথ ব্যবহার করুন।

# নিয়মিতভাবে শুকনো এবং নরম কাপড় দিয়ে কাঠের আসবাব পরিস্কার করুন। ভালো করে খেয়াল রাখতে হবে, যাতে করে আসবাবের খাঁজে ধুলো যেনো জমে না থাকে। এক্ষেত্রে ইচ্ছে করলে ভ্যাকুয়াম ক্লিনারও ব্যবহার করতে পারেন। তবে ভেজা কাপড় দিয়ে কখনও মুছবেন না। এতে করে আসবাবের ওপর দাগ পড়ে যেতে পারে।

# আসবাব পত্রের পোকামাকড়ের উপদ্রব ঠেকাতে নিমের তেলও স্প্রে করতে পারেন। মাঝে-মধ্যে আসবাব পত্রের ডেকোরেশন পরিবর্তন করুন। কাঠের আসবাব পত্র এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সরানোর সময় খেয়াল রাখুন ফার্নিচারের জয়েন্ট পয়েন্টগুলো ঠিক রয়েছে কি না। অর্থাৎ একটু সাবধানে সরাতে হবে।

# আপনার ঘরের দামি ফার্নিচার দ্রুত নষ্ট হওয়া মানেই হলো অনেক অর্থ অপচয়। সেজন্য ফার্নিচারের নিয়মিত যত্ন নিতে হবে। তাহলে আপনার শখের আসবাবটি অনেকদিন টিকে থাকবে এবং দেখতেও লাগবে নতুনের মতোই।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...