সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড ॥ খুনিরা গ্রেফতার না হলে আন্দোলনে যাবেন সাংবাদিকরা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাগর-রুনি হত্যাকান্ডের ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে না পারলে সাংবাদিকরা আন্দোলনের হুমকি দিয়েছে। ঊল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ৪৮ ঘন্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেফতার করা হবে।
খুনিরা গ্রেফতার না হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনে যাবে সাংবাদিকরা।
১২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) আহ্বানে আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশ কর্মসূচিতে এই ঘোষণা দেয়া হয়। বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচিতে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, জাতীয় প্রেস ক্লাব, ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্র্যাব), ক্যামেরাম্যান অ্যাসোসিয়েশন, এটিএন বাংলা পরিবার, টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ, নিউজ প্রেজেন্টার্স সোসাইটি অব বাংলাদেশ, নিউজ ব্রডকাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, রংপুর বিভাগ সাংবাদিক সমিতিসহ সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনের সদস্য ও গণমাধ্যম কর্মীরাও অংশ নেন। মানববন্ধনে বিএফইউজে (একাংশের) মহাসচিব শওকত মাহমুদ বলেন, ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় এরই মধ্যে পার হয়ে গেছে। কিন্তু এখনও হত্যাকারীদের গ্রেফতার করা হয়নি। এই সময়ের মধ্যে আসামিদের ধরতে না পারলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনে যাবে সাংবাদিকরা। আমরা এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা বলেন, বেঁধে দেয়া সময়সীমার মধ্যে সাংবাদিক দম্পতির খুনিদের গ্রেফতার করা না হলে সাংবাদিকদের সব সংগঠন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করবে। ডিইউজের সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি আমরা। আশা করছি তার দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ীই খুনিরা গ্রেফতার ও হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন হবে।
জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমদ, বিএফইউজে (একাংশের) সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শাবান মাহমুদ, এটিএন বাংলার চিফ নিউজ এডিটর ভানুরঞ্জন চক্রবর্তী, মাছরাঙা টেলিভিশনের চিফ রিপোর্টার মমিনুর রহমান খান, ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু সমাবেশে বক্তব্য দেন।
জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা বলেন, রাস্তায় নামলেই সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ দিতে হয়। খবর সংগ্রহ করতে গেলে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন সাংবাদিকরা। আর রাতে বাসায় যাওয়ার পর খুন হতে হয় দুবৃর্ত্তদের হাতে। এর সমাধান করতে হবে। ৩ বছরে সারাদেশে ২৫ জন সংবাদকর্মী খুন হলেও একটি হত্যারও বিচার হয়নি বলে অভিযোগ করেন সাংবাদিক নেতারা। শুক্রবার গভীররাতে মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার মেহেরুন রুনি তাদের পশ্চিম রাজাবাজারের বাসায় নৃশংসভাবে খুন হন। এদিকে সাগর-রুনি হত্যার প্রতিবাদে ৩ দিনের কর্মসূচি পালন করছে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...