The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ড. ইউনূসকে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করার প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা টাইমস্‌ রিপোর্ট ॥ নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করার প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ সফররত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ৭ সদস্যের সংসদীয় প্রতিনিধি দল ২২ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এই প্রস্তাব দেন। ইইউ প্রতিনিধি দল অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর এই প্রস্তাবের প্রশংসা করেন। ইইউ প্রতিনিধি দলটি ১৯ ফেব্রুয়ারি নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন।
ড. ইউনূসকে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট করার প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী 1
পত্রিকান্তরে প্রকাশিত রিপোর্টে আরও বলা হয়, বিশ্বব্যাংকের বর্তমান প্রেসিডেন্ট রবার্ট জেলিক সম্প্রতি জানিয়েছেন, তিনি নতুন করে আর এই পদের জন্য লড়বেন না। ৩০ জুন বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার মেয়াদ শেষ হবে। যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে থাকা এই সংস্থার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট কে হচ্ছেন তা নিয়ে কয়েক মাস ধরেই আলোচনা চলছে। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে এই পদে লড়াইয়ের জন্য নাম প্রস্তাব করেছে।

ইইউ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী আরও জানান, ক্ষুদ্র ও গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. ইউনূস বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট হলে তা সংস্থাটির জন্য অনেক ভালো হবে। কারণ, ড. ইউনূস বিশ্ব্যবাপী পরিচিত। গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে অপসারণ করায় যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের উন্নত দেশগুলো উদ্বেগ জানান। গ্রামীণ ব্যাংক ও ড. ইউনূসের ব্যাপারে একটি সম্মানজনক সমাধান খুঁজে বের করতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারী ক্লিনটন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেন। পরে যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স আলাদাভাবে বিশেষ প্রতিনিধিকেও বাংলাদেশে প্রেরণ করে।

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গত বছর ২ মার্চ অব্যাহতি দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। অনুমোদন না থাকার অভিযোগে ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এর বিরুদ্ধে ড. ইউনূস উচ্চ আদালতে গেলে তা খারিজ হয়ে যায়। তবে আপিল বিভাগের ওই আদেশ পুনর্বিবেচনার জন্য ডিসেম্বরে একটি আবেদন করেছেন ড. ইউনূস। ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমে দারিদ্র্যবিমোচনের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০০৬ সালে তিনি শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পান।

আমরা মনে করি যোগ্য মানুষকে তাঁর মর্যাদা দেয়া উচিত। অন্তত এবারের এই প্রস্তাবের পর আর কারো মনে কোন সংশয় থাকলো না। কারণ বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট হওয়ার যোগ্যতা নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূসের রয়েছে।

Loading...