The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ (০৩-১১-২০১২)

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে তথ্য প্রযুক্তির হাওয়া। তাইতো বর্তমান বিশ্বে তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া ভাবাই যায় না। আজ তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ (০৩-১১-২০১২) এ বিশ্বের বেশ কিছু তথ্য প্রযুক্তির খবর তুলে ধরা হলো।
তথ্য প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত সংবাদ (০৩-১১-২০১২) 1
ল্যাপটপ ব্যবহারে ক্ষতি হতে পারে মেয়েদের স্নায়ু

ব্রিটিশ একদল গবেষক সম্প্রতি জানিয়েছেন, অতিরিক্ত ল্যাপটপ ব্যবহারের ফলে ১২ বছরের মেয়েরা স্নায়ুবিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে।

পায়ের ওপর রেখে বেশি সময় ধরে ল্যাপটপ ব্যবহার করলে শরীরে চাপ পড়ে বেশি। আর এ সময় ল্যাপটপ ইউজাররা মাথা নিচু করে একদৃষ্টিতে ল্যাপটপে স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকেন। ফলে শরীরের অন্য অংশগুলোর থেকে ঘাড়, মেরুদণ্ড ও পায়ে চাপ পড়ে বেশি। লন্ডনের অস্থি বিশেষজ্ঞ মাইকেল ড্রার্নটল জানিয়েছেন, প্রায় এক ডজন এক্সরের উপাত্ত আর ছবি বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, যারা নিয়মিত ল্যাপটপ ব্যবহার করে আসছেন তাদের দু’হাড়ের সংযোগস্থলে ক্ষয় হচ্ছে। আর এদের মধ্যে ১২ বছর বয়সের মেয়েদের বেশিরভাগ পিঠের ব্যথায় ভুগছে।

নয়াদিল্লির ফরটিস হাসপাতালের অস্থি বিষয়ক চিকিৎসক বিকাশ গুপ্ত প্রতি সপ্তাহেই হাতের ব্যথায় আক্রান্ত হওয়া রোগীর উপস্থিতি দেখতে পাচ্ছেন। তিনি জানান, ওই রোগীদের বেশিরভাগকেই পরিমিত সময় ল্যাপটপ ব্যবহারের অভ্যাস করতে বলা হয়। এখন তারা সযত্নের পর্যায়ে। জানা গেছে, ল্যাপটপের মতো ডিভাইস যেগুলো পায়ে রেখেই অপারেট করা যায় সেগুলো দিনদিন সহজলভ্য হওয়ায় এবং বহনযোগ্য হওয়ায় মানুষ এগুলোর ওপর ঝুঁকে পড়ছে। আর গত দু’বছরে এ ধরনের ডিভাইস ব্যবহারকারীর একটা বড় অংশ এ ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। যাদের বেশিরভাগই তরুণ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ল্যাপটপ ব্যবহারের সময় প্রতি ২০-২৫ মিনিট অন্তর বিরতি দেয়া উচিত। নয়তো এর ফলে মাংসপেশি, লিগামেন্ট ও হাড়ের জোড়া ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

এবার তরল ব্যাটারি!

বিজ্ঞানীরা এবার সত্যি সত্যিই তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সবাইকে। সম্প্রতি তারা এমন এক ব্যাটারি তৈরি করেছেন, যা স্প্রে করলেই সাধারণ ব্যাটারির মতো কাজ করতে থাকে। যুক্তরাষ্ট্রের রাইস ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা নতুন এই স্প্রে-অন পেইন্ট ব্যাটারি তৈরি করেন। মজার ব্যাপার হলো, এই স্প্রে বা তরল অন্যান্য রিচার্জেবল ব্যাটারির মতোই ইলেকট্রিসিটি স্টোর করতে পারবে। শুধু তাই নয়, এই স্প্রে প্রচলিত ব্যাটারির মতো প্রয়োজনীয় শক্তিও সরবরাহ করতে সক্ষম। বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষণায় এমন একটি অভিনব পন্থা আবিষ্কার করেছেন, যার মাধ্যমে সাধারণ ব্যাটারির উপাদানগুলোকে ভেঙ্গে তরলে রূপান্তর করা যায় এবং স্প্রে-অন পেইন্টের মতো ব্যবহার করে রং করা যায়।

অবাক করার বিষয় হল, এ ব্যাটারির উপাদানগুলোকে ভেঙ্গে তরলে রূপান্তর করলেও এই স্প্রে-অন ব্যাটারিটি কার্যক্ষমতা হারায় না। এটি রিচার্জেবল ব্যাটারির মতোই চার্জ করা যায় এবং প্রয়োজনমতো ব্যবহার করা যায়। রিচার্জেবল এই ব্যাটারিটি তৈরি হয় স্প্রে-পেইন্ট করা লেয়ার থেকে। এর প্রতিটি লেয়ার একটি সাধারণ ব্যাটারির কারেন্ট কালেক্টর, ক্যাথড, অ্যানোড এবং মাঝখানের পলিমার সেপারেটর হিসেবে কাজ করে। গবেষকরা এই স্প্রে-অন পেইন্ট প্লাস ব্যাটারিটি সিরামিক, গ্লাস এবং স্টেইনলেস স্টিলের উপর সফলভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছেন। গবেষকরা নয়টি বাথরুমের টাইলসে পেইন্ট করে এবং প্রত্যেকটির সঙ্গে সংযুক্ত করে পরীক্ষা করে দেখেন। তারা দেখেছেন, ২.৪ ভোল্ট ব্যাটারির শক্তিতে সেগুলো চার্জ হয় এবং এ চার্জ ছয় ঘন্টা পর্যন্ত শক্তি ধরে রাখে।

দূষিত পানি যখন সোনার উৎস!

ফরাসী ম্যাগপাই পলিমারস প্রতিষ্ঠানের গবেষকরা স্বল্প খরচে রিসাইক্লিং প্ল্যান্টের দূষিত পানি থেকে সোনার মতো মূল্যবান ধাতব পদার্থ আহরণের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন। এরফলে রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট থেকেই এখন পাওয়া যাবে মূল্যবানসব ধাতু। জানা গেছে, এসব ধাতু ব্যবহার করা যাবে ইলেকট্রনিক গ্যাজেট এবং বিভিন্ন গবেষণার কাজে। পরিশোধনাগারে এসিড-পানি দিয়ে গলানো ইলেকট্রনিক পদার্থ থেকে পানিতে মিশে যায় সোনার মতো মূল্যবান ধাতব পদার্থ। দূষিত পানি থেকেও এসব ধাতু আহরণের প্রযুক্তি থাকলেও তা ব্যয়বহুল। ফলে আগে এ বিষয়টি মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়নি। তবে ফরাসী ওই গবেষকদের সাম্প্রতিক উদ্ভাবন সে আশা পুনরায় জাগিয়েছে। বিজ্ঞানীদের তৈরি বিশেষ এক ধরনের রজন পদার্থের ওপর ধাতুমিশ্রিত পানি প্রবাহিত করা হলে ধাতুগুলো আটকে যায় রজনের সঙ্গে। বেরিয়ে আসে বিশুদ্ধপানি। পলিমারসের পরিচালক এটেইন আলমোরিকের জানান, এর মাধ্যমে এক লিটার পানিতে যদি ১ মাইক্রোগ্রাম ধাতুও থাকে তা আটকে যাবে রজনে। এর মাধ্যমে ১০ ঘনগজ পানি থেকে পাওয়া যেতে পারে কয়েক আউন্স সোনা।

উইন্ডোজ থেকে লিনাক্স ব্যবহার

যারা ডুয়াল-বুট করে থাকেন অর্থাৎ একই সঙ্গে উইন্ডোজ আর লিনাক্স ব্যবহার করেন তারা নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন যে লিনাক্স থেকে উইন্ডোজ ফাইল সিস্টেম এক্সেস করা গেলেও বিপরীতটি করা যায় না। অর্থাৎ লিনাক্স থেকে উইন্ডোজ ফাইল সিস্টেমে (ঋধঃ৩২, ঘঞঋঝ) থাকা ফাইল ব্যবহার করা গেলেও উইন্ডোজ চালানোর সময় লিনাক্স এর পার্টিশনে (বীঃ২, বীঃ৩) থাকা ফাইল অ্যাকসেস করা যায় না। ঊীঃ২ওঋঝ নামের একটি ফ্রি-অয়্যার দিয়ে উইন্ডোজ থেকেই লিনাক্স-এর বীঃ২, বীঃ৩ ইত্যাদি অংশে থাকা ফাইল জবধফ/ডৎরঃব করা যাবে। বিস্তারিত তথ্যের জন্য এই লিংকে যেতে পারেন: িি.িভংফৎরাবৎ.ড়ৎম/ভধয়.যঃসষ
ডাউনলোড লিংক যঃঢ়://িি.িভংফৎরাবৎ.ড়ৎম/ফড়হিষড়ধফ.যঃসষ

টুইটারকে পেছনে ফেলেছে ইনস্ট্যাগ্রাম

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দারা স্মার্টফোনে টুইটারের চেয়ে ইনস্ট্যাগ্রাম বেশি ব্যবহার করে। প্রযুক্তি ওয়েবসাইট অলথিংস ডিজিটালের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। খবরটি নিশ্চিতভাবেই ফেসবুকের জন্য আনন্দদায়ক।

সমপ্রতি প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ সেলফোনে ফেসবুক ব্যবহারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। প্রতিবেদনে গবেষণা সংস্থা কমস্কোরের বরাত দিয়ে বলা হয়, ফেসবুকের অধীনে থাকা ইনস্ট্যাগ্রাম গড়ে দৈনিক ৭৩ লাখ স্মার্টফোনে ব্যবহার করা হয়। টুইটারে এ সংখ্যা ৬৯ লাখ।

অলথিংস ডিজিটালের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইনস্ট্যাগ্রামের পাশাপাশি ফেসবুকও এ কৃতিত্বের দাবিদার। চলতি বছরের এপ্রিলে ফেসবুক ১০০ কোটি ডলারে ইনস্ট্যাগ্রামকে অধিগ্রহণ করে। অনেকেই ধারণা করেছিলেন, অধিগ্রহণের ফলে ইনস্ট্যাগ্রামের ব্যবহারকারী কমতে পারে। এ ধারণা ভুল প্রমাণ করে ইনস্ট্যাগ্রাম এর অগ্রগতি ধরে রেখেছে।

কমস্কোরের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইনস্ট্যাগ্রাম ব্যবহারকারীরা দৈনিক গড়ে ২৫৭ মিনিট ব্যয় করে। বিপরীতে টুইটার ব্যবহারকারীরা গড়ে সাইটটিতে ১৭০ মিনিট সময় কাটায়। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে ইনস্ট্যাগ্রামের ব্যবহারকারী সংখ্যা ২ কোটি ২০ লাখ আর টুইটার ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২ কোটি ৯০ লাখ।

হারিয়ে যাচ্ছে টেপরেকর্ডার ডেস্কটপ এবং শ্রমঘণ্টা

সামাজিক যোগাযোগ সাইট লিংকডইনের এক জরিপে বলা হচ্ছে, প্রযুক্তির উন্নতির ফলে কর্মক্ষেত্র থেকে টেপরেকর্ডার, ডেস্কটপ কম্পিউটার এবং শ্রমঘণ্টার মতো বিষয়গুলো হারিয়ে যাচ্ছে। পেশাজীবীরা জানান, প্রযুক্তির সহজলভ্যতা ও ঘরে ঘরে কম্পিউটার থাকায় নির্দিষ্ট শ্রমঘণ্টার বিষয়টি দ্রুত উঠে যাবে। ঘরে বসে সবাই অফিসের কাজ করে দেবে।

ফলে সময়মতো অফিস করার বিষয়টি আর থাকবে না। পেশাজীবীদের মধ্যে ৩৬ শতাংশ অফিসে প্রাকৃতিক আলো পাওয়া যায়, এমন জায়গা পছন্দ। আর ২৫ শতাংশের কাছে বিশ্রাম নেয়ার উপযুক্ত ছিমছাম নিরিবিলি জায়গা কাজের জন্য পছন্দ। লিংকডইন ইন্ডিয়ার কান্ট্রি ম্যানেজার হরি ভি কৃষণ এক বিবৃতিতে বলেন, কর্মক্ষেত্র উন্নতির পথে রয়েছে এবং এ গবেষণা থেকে প্রাপ্ত ফল তারই প্রমাণ। ট্যাবলেট কম্পিউটার, ভিডিও কনফারেন্সিং এবং স্মার্টফোন ব্যবহার এখন নিত্যদিনের কর্মকাণ্ডের অন্তর্ভুক্ত। প্রতিষ্ঠানগুলো এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি প্রযুক্তি নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। বিশ্বের ৭ হাজার পেশাজীবীর ওপর লিংকডইন এ জরিপ চালিয়েছিল।
অফিস এনডেনজার্ড স্পিসিজ শীর্ষক এ গবেষণায় বেশির ভাগ কর্মীই বলেন, ২০১৭ সালের মধ্যে পরিচিত অনেক ডিভাইস বা বিষয়ই কর্মক্ষেত্রে দেখা যাবে না। জরিপে অংশ নেয়া ৭৩ শতাংশ পেশাজীবী জানান, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে টেপরেকর্ডার বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ৬০ শতাংশ পেশাজীবীর মতে, নির্দিষ্ট শ্রমঘণ্টা বলে কিছু থাকবে না।

এছাড়া স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটের আধিক্যের ফলে ডেস্কটপ কম্পিউটারের বিলুপ্তির পক্ষে ৫৮ শতাংশ পেশাজীবী রায় দিয়েছেন।

দ্রুত বর্ধনশীল ইন্টারনেট দেশের তালিকায় ভারত

গবেষণা সংস্থা কমস্কোর ও ভারতের ব্যবসায়ীদের সংস্থা আসোচ্যাম যৌথভাবে এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দ্রুত বর্ধনশীল ইন্টারনেট বাজারের সেরা তিনে রয়েছে ভারত। প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, ভারতে ভ্রমণের সাইটগুলোয় গ্রাহকের সংখ্যা বাড়ছে। অনলাইনে ট্রাভেল এজেন্ট খোঁজা, গাড়ি ভাড়া নেয়া, হোটেল বুকিং দেয়া ইত্যাদি কাজে ভারতে ইন্টারনেট ব্যবহারের হার বেশি। গবেষণা অনুযায়ী ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর প্রতি পাঁচজনের একজন ইন্ডিয়ান রেলওয়ের ওয়েবসাইটে বিভিন্ন তথ্যের জন্য যান। এ ছাড়া দেশটিতে অনলাইনে খুচরা কেনাকাটা ৬০ শতাংশ বেড়েছে। এ ধরনের সাইটগুলোয় প্রতি মাসে গড়ে ৩ কোটি ৭৫ লাখ ভারতীয় প্রবেশ করে। গত এপ্রিল থেকে জুনের মাঝে দেশটিতে গড়ে ৩১ ডলার করে অনলাইনে লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে আমেরিকান এক্সপ্রেস কার্ড থেকে গড়ে লেনদেন হয়েছে ১১০ ডলার। এরপর রয়েছে ভিসা ও মাস্টারকার্ড। গবেষণা অনুযায়ী ইন্টারনেটের দ্রুত বিকাশের হিসাবে ব্রিকভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে ভারত। দেশটিতে প্রতি বছর ৪১ শতাংশ হারে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাড়ছে। এক বছরে দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে ১ কোটি ৮০ লাখ। বর্তমানে ভারতে সাড়ে ১২ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে। ব্রিকভুক্ত আরেক দেশ চীনে গত জুলাই পর্যন্ত ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ছিল ৩৩ কোটি ৬০ লাখ। গত এক বছরে দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে ১ কোটি ৪০ লাখ। গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, অর্থ পরিশোধ পদ্ধতি, ই-কমার্স ও অনলাইন ব্যবহারে রাশিয়া ও ভারতের মধ্যে মিল রয়েছে। এ ছাড়া গত ১২ মাসে ভারত বিশ্বে সেরা তিন ইন্টারনেট বাজারের অন্যতম বলে পরিচিতি পেয়েছে। প্রতিবেদন সম্পর্কে আসোচ্যামের মহাসচিব ডি এস রাওয়াত বলেন, ভারতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ৭৫ শতাংশই ১৫ থেকে ৩৪ বছর বয়সের মধ্যে। কম বয়সী ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে ভারত সবচেয়ে পরিচিত দেশগুলোর অন্যতম। এ ধারা আসছে বছরগুলোয়ও অক্ষুণ্ন থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়ার ক্ষেত্রে দেশটিতে পুরুষ ও নারী উভয়ই অবদান রাখছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। দেশটিতে ১৫-২৪ বছর বয়সী ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে।

এরা মূলত সামাজিক যোগাযোগ, পোর্টাল, তথ্য অনুসন্ধান, বিনোদনসহ খবরের ওয়েবসাইটগুলোয় বেশি সময় কাটান। সাড়ে ১২ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর প্রায় ৪০ শতাংশ নারী।

৯ বছর পর লোকসানে অ্যামাজন

ই-কমার্স ভিত্তিক ওয়েবসাইট অ্যামাজন ডটকম বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ২৭ কোটি ৪০ লাখ ডলার লোকসান করেছে। প্রতিষ্ঠানটি ২০০৩ সালের পর প্রথমবারের মতো লোকসান করলো। অ্যামাজনের পণ্য দ্রুত ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দিতে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেফ বেজোস বিশ্বে নতুন ১৯টি জায়গায় বিক্রয়কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা করেছেন।

ফলে প্রতিষ্ঠানটির গত প্রান্তিকের পরিচালন ব্যয় গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৮ শতাংশ বেড়ে ১ হাজার ৩৮০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। এসব কারণে প্রতিষ্ঠানটি লোকসানের মুখে পড়েছে। অ্যামাজনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ লোকসান নিয়ে অবশ্য খুব একটা চিন্তিত নন। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য কম দামে ডিভাইস বিক্রি। ডিভাইস বিক্রির হিসাবে আমরা মোটামুটি সন্তোষজনক অবস্থানে রয়েছি।

চলতি মাসে প্রতিষ্ঠানটির কিন্ডেল ফায়ার এইচডির নতুন সংস্করণ বাজারে আসবে বলে জানা গেছে। চতুর্থ প্রান্তিকে ব্যবসা ভালো হবে বলেও পূর্বাভাস দেন ওই কর্মকর্তা। এ সময় ২ হাজার ২৭৫ কোটি ডলার আয়ের আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি। লোকসান হলেও চলতি সময়ে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য বিক্রি বেড়েছে। গত বছরের তুলনায় প্রতিষ্ঠানটির বিক্রি ২৭ শতাংশ বেড়ে ১ হাজার ৩৮১ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। ফ্যাক্টসেটের বিশ্লেষকরা জানিয়েছিলেন, তৃতীয় প্রান্তিকে প্রতিষ্ঠানটি সার্বিকভাবে ১ হাজার ৩৯০ কোটি ডলার আয় করতে পারে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx