The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মানুষখেকো এক ব্রিটিশের কাহিনী!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মানুষখেকো বাঘ, ভাল্লুক কিংবা কুমিরের কাহিনী আমরা শুনেছি। কিন্তু এবার স্বয়ং মানুষই মানুষকে খেয়ে ফেলেছে এমন এক কাহিনীর কথা শোনা গেছে। ব্রিটেনের এক নাগরিক শেষপর্যন্ত বিচারের সম্মুখিন হয়েছেন।


Dale-Bolinger-1

ডেইলি মিরর বলেছে, মানুষখেকো এক ব্রিটিশের খবর পাওয়া গেছে। ডেল বলিঞ্জার নামের ব্রিটেনের ওই নাগরিক এখন বিচারের মুখোমুখি। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে কঠোরতর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

ডেল বলিঞ্জার পেশায় একজন নার্স। বয়স ৫৮। তার বাড়ি ব্রিটেনের কেন্টে। ৩ সন্তানের জনক এই লোক যে বিকৃত রুচির এক মানুষখেকো হতে পারে, তা কেওই আগে বুঝতেই পারেনি।

Dale-Bolinger

ওই খবরে বলা হয়, ইন্টারনেটে বেশ অনেকদিন ধরেই নারী শিকারে তৎপর ছিলেন বলিঞ্জার। ডার্কফেটিশ নেটওয়ার্ক নামের এক ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট খুলে সুন্দরী মেয়েদের প্রতি বার বার জানাচ্ছিলেন বন্ধুত্বের আহ্‌বান। সেখানে ডেল বলিঞ্জার নিজেকে যৌনকর্মে পারদর্শী, প্রেমে পটু, এক সুপুরুষ হিসেবেই উপস্থাপন করতে থাকেন তিনি।

সেইসঙ্গে ডেল বলিঞ্জার আরও জানান, শয্যায় নিয়ে যাওয়ার পর তৃপ্ত নারীকে কেটে খেতে খুব পছন্দ করেন তিনি। প্রোফাইলে এমন কথা লেখা থাকা সত্ত্বেও বলিঞ্জারের মিষ্টি কথায় ভিজে যেতো মেয়েদের মন।

এমনই এক ঘটনা ঘটলো, ১৪ বছরের এক কিশোরীর সঙ্গে যৌনমিলনের পর তার মাংস খেতে চেয়েছিলেন ডেল বলিঞ্জার! জার্মানিতে বাসরত মেক্সিকান এই কিশোরীটিকে নাকি সে কথা বলেওছিলেন বলিঞ্জার। কিন্তু নির্দিষ্ট তারিখে মেয়েটি নির্দিষ্ট জায়গায় আসেনি। বরং ইন্টারনেটে কথোপকথনের বিবরণ পেয়ে এফবিআই খুঁজতে শুরু করে বলিঞ্জারকে। ই-মেইল ঠিকানার সূত্র ধরে খুঁজে বের করা হয় বলিঞ্জারের প্রকৃত বাড়ির ঠিকানা। তারপর তাকে গ্রেফতার করে আইনের মুখোমুখি করার জন্য অনুরোধ জানানো হয় ব্রিটেনের পুলিশকে। গত সোমবার ৪ দিনের শুনানির শেষ দিনে ব্রিটেনের ক্যান্টারবুরির আদালতে বলিঞ্জার এ কথা স্বীকারও করেছে।

ডেল বলিঞ্জার আদালতকে জানান, ২০১২ সালে তিনি জার্মানিতে অবস্থানরত এক মেক্সিকান কিশোরীর সঙ্গে সহবাস করতে চেয়েছিলেন। ডার্কফেটিশ নেটওয়ার্কেই মেয়েটির সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। সেখানে চ্যাট করতে করতে এক সময় যৌনমিলনে আগ্রহী করে তোলেন ওই মেয়েটিকে। ১৪ বছর বয়সী মেয়েটির যেদিন আসার কথা তার আগের দিন একটি কুড়াল কিনেও রেখেছিলেন বলিঞ্জার। পরিকল্পনামতো সবকিছু হলে যৌনসম্ভোগের পর মেয়েটিকে কেটে খেতেন তিনি!

ডার্কফেটিশ নেটওয়ার্কে নিজের প্রোফাইলে এর আগেও ৩৯ বছর বয়সী এক নারী এবং পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে কেটে খাওয়ার বিবরণও দিয়েছেন ডেল বলিঞ্জার। আদালতে সেই ঘটনা দুটিকে ‘নিছক কল্পনা’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

অভিযোগ তিনি যতই অস্বীকার করুন না কেনো, শাস্তি এড়াতে পারবেন না বলিঞ্জার। অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোরীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপন এবং তারপর হত্যার পরিকল্পনা করায় শাস্তি হবে তার। বলিঞ্জারের কী শাস্তি হবে, তা জানা যাবে আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর। সেদিনই রায় ঘোষণা করবে আদালত। আর তারপরই নিশ্চিত হবে এমন বিকৃত রুচির মানুষের আসলে কি সাজা হলো। তথ্যসূত্র: মিরর.কো.ইউকে

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...