মৃত দাদার সঙ্গে বিকৃত অঙ্গভঙ্গি করে সেলফি!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সেলফিকে দিনে দিনে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা এই ছবিটি না দেখলে হয়তো আমরা বিশ্বাস করতে পারতাম না। মৃত দাদার সঙ্গে তাও বিকৃত অঙ্গভঙ্গি করে সেলফি তুললো এক কিশোর!

John Osama

সেলফিকে দিনে দিনে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা এই ছবিটি না দেখলে হয়তো আমরা বিশ্বাস করতে পারতাম না। মৃত দাদার সঙ্গে তাও বিকৃত অঙ্গভঙ্গি করে সেলফি তুললো এক কিশোর! মৃত ব্যক্তির সঙ্গেও নাক-জিহ্‌বা-মুখ বাঁকিয়ে সেলফি তুললেন ওই ব্যক্তি। তারপর এটি পোস্ট করার পর সঙ্গে সঙ্গে নিন্দার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে।

বিকৃত মানসিকতার এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন সৌদি আরবের মদিনার এক কিশোর। সম্প্রতি একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করা দাদার বিছানার বাম পাশে দাঁড়িয়ে সেলফিটি তোলেন ওই কিশোর। তোলার পরপরই সেটি আবার আপলোড করে দেন ওই কিশোর নিজেই। নাক-মুখ বাঁকিয়ে জিহ্‌বা বের করে তোলা সেলফিটির ক্যাপশন দেওয়া হয়- ‘বিদায়, দাদা’ (গুডবাই, গ্র্যান্ডফাদার), এতে ‘ফিলিং’ জানানো হয়েছে, ‘স্যাড’।

সংবাদমাধ্যম যুক্তরাজ্যভিত্তিক ডেইলি মেইল জানিয়েছে, সেলফিটি ফেসবুকে পোস্ট করার পর হতভম্ব হয়ে পড়েন অন্য সামাজিক যোগাযোগকারীরা। তারা ওই কিশোরের এহেন কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণে ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর একটি নালিশও জমা পড়ে। নালিশটি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে মদিনার সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী বিভাগ। বিভাগের এক কর্মকর্তারা বলেছেন, ‘হাসপাতালে প্রবেশ করে ওই তরুণকে সেলফি তুলে দেওয়ার সুযোগ কারা দিলেন- তাদেরও খোঁজা করা হচ্ছে।’

মদিনার পাবলিক রিলেশন ও মিডিয়া বিভাগের প্রধান আবদুর রাজাক হাফেদ বলেন, ‘এই ঘটনাটির তদন্ত চলছে। ওই কিশোর যা করেছেন, তা কেবল নিন্দনীয়ই নয়, জঘন্যও বটে।’

সৌদ আল-হারবি নামে অপর এক আইনজীবী বলেছেন, ‘ওই কিশোরকে এই কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণের জন্য শাস্তি না দিলে, অন্যরা এই ধরনের আচরণ করতে ভয় পাবে না।’

সব মিলিয়ে এই সেলফি নিয়ে পুরো মদিনাসহ সৌদি আরবে তুমুল বিতর্কের ঝড় উঠেছে। সাম্প্রতিক সময়ে সেলফি নিয়ে বর্তমান প্রজন্ম যেভাবে মেতে রয়েছেন তাতে ভবিষ্যতে এটির জন্য আরও কত কিই না দেখতে হবে আমাদের!

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...