ব্রাজিলের ভয়ঙ্কর এক সাপের দ্বীপ কাহিনী

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অনেক দ্বীপ রয়েছে পৃথিবীতে। তবে আজকে এমন এক দ্বীপের কাহিনী রয়েছে সেটি ব্রাজিলের ভয়ঙ্কর এক সাপের দ্বীপ কাহিনী।

Brazil's horrific tale of a snake island

ব্রাজিলের ভয়ঙ্কর সাপের দ্বীপ হলো ‘ইহা ডি কুইমাডা গ্রান্ডি’ দ্বীপ। এই দ্বীপটি দখল করে রেখেছে সাপেরা। এটি ব্রাজিলের উপকূল এলাকা হতে ৯০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এই দ্বীপটিতে এতো বেশি সাপের বসবাস যে, মাটিতে পা ফেলার
জায়গা পাওয়াও দুষ্কর। আর এই সাপ গুলোও খুব বিষধর। এক ছোবলেই সেগুলো যে পরিমাণ বিষ উগড়ে দেয়, তাতে করে তৎক্ষণাত মরে যেতে পারে একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষ।

Brazil's horrific tale of a snake island-2

এক তথ্যে জানা যায়, ‘গোল্ডেন ল্যান্সহেড’ নামের এক প্রজাতির সাপের বংশবৃদ্ধির হারও এখানে খুব বেশি। একটি সাপ একবারেই প্রায় ৫০টি বাচ্চার জন্ম দিতে পারে। সাপগুলোর প্রধান খাদ্য হলো বিভিন্ন স্থান হতে উড়ে আসা সামুদ্রিক পাখি। উড়তে উড়তে ক্লান্ত হওয়া এসব পাখিদেরই খেয়ে বেঁচে রয়েছে ভয়ংকর এসব সাপ।

Itanhaem_SP, 22 de novembro de 2011Expedicao para a Area de Relevente Interesse Ecologico (ARIE) Ilha Queimada Grande para producao de reportagem para a revista National Geographic Brasil sobre a reserva e sua mais ilustre moradora, a Jaraca Ilhoa (Bothropides insularis).Foto: JOAO MARCOS ROSA / AGENCIA NITRO

এই দ্বীপে মনুষ্য বসতি একেবারেই নেই। কারণ হলো সেখানে পর্যটকদের যাওয়া নিষিদ্ধ। একমাত্র গবেষণার জন্য অনুমতি নিয়ে এই দ্বীপে যেতে পারেন বিজ্ঞানীরা। তবে সাহসী কোনো ব্যক্তি ছাড়া এই ভয়ংকর সাপের দ্বীপে যাওয়ার কৃতিত্ব নেওয়ার মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...