নারী নির্যাতন মামলায় কারাগারে সাবেক জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক মুন্না !

মতিউর রহমান মুন্না- একসময় ফুটবল নিয়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন, নেতৃত্ব দিয়েছেন মোহামেডান স্পোটিং ক্লাবের এবং জাতীয় দলের । সেই মতিউর  রহমান মুন্নাকে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায়  কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।


image_660_192853

বিয়ে করেছিলেন ভালোবেসে ১১ বছর আগে । মেয়েও আছে একটি , বয়স পাঁচ বছর । কিন্তু দাম্পত্য কলহে লিপ্ত ছিলেন মতিউর রহমান মুন্না তার স্ত্রীর সাথে কয়েক বছর যাবত । অভিযোগ আছে, স্ত্রী রুমিকে প্রায়ই শারিরীকভাবে নির্যাতন করতেন এবং যৌতুকও চাইতেন ; কথিত আছে হত্যার হুমকিও দিয়েছেন কয়েকবার ।

স্বামীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনে ফারহানা গত ২৮ জানুয়ারি ঢাকার নারী ও শিশু আদালতে মামলা করেন। এর প্রেক্ষিতে সোমবার সকালে ঢাকার নারী শিশু নির্যাতন বিশেষ ট্রাইবুনালে স্ত্রী ফারহানা হোসেন রুমির দায়ের করা যৌতুকের কারনে নির্যাতন ও হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় আত্মসর্ম্পন করে জামিন চায়।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী দিলরুবা শারমিন প্রথম আলোকে জানান, ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১(খ) ধারায় মামলাটি হয়েছে। বিচার বিভাগীয় তদন্তের পর তাঁর বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেওয়া হয়। তিনি আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। কিন্তু নারী ও শিশু আদালত-৪ সেটি নামঞ্জুর করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।’ অভিযোগ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে মুন্নার।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে বিষয়টি। মোহামেডানের পরিচালক সারোয়ার হোসেন বলেন, “যত দূর জেনেছি মুন্নাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর বেশি কিছু আমার জানা নেই।”

উল্লেখ্য, গত ৪ জানুয়ারি স্ত্রী ফারহানা তার স্বামী মুন্নার বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগে মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করতে যান। পুলিশ মামলা না নেয়ায় তিনি আদালতে মামলা করেন। মামলা নম্বর-১৩৮/১৩। জুডিশিয়াল তদন্তে মুন্নার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয় !

তথ্যসুত্রঃ বিডি-প্রতিদিন.কম।

Advertisements
Loading...