The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

দুই নেত্রী বসলেও রাজনৈতিক সংকটের সমাধান হবে না, সমস্যার সমাধান নিজেদেরই করতে হবে-বিচারপতি হাবিবুর রহমান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দেশে যে রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হয়েছে তাতে দেশের মানুষ কেওই শান্তিতে নেই। কারণ দেশের সংকটে সকলেরই ভূমিকা রাখতে হয়। যেমন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান সভা সমাবেশে তাঁর মন্ত্রব্য প্রদান করছেন। রাজনীতিবিদরা এসব বক্তব্য যদি একটু অনুধাবন করতে পারেন তাহলে দেশের জন্য অবশ্যই মঙ্গল বয়ে আনবে।
দুই নেত্রী বসলেও রাজনৈতিক সংকটের সমাধান হবে না, সমস্যার সমাধান নিজেদেরই করতে হবে-বিচারপতি হাবিবুর রহমান 1
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেছেন, গণতন্ত্রে ভিন্নমত থাকে, কিন্তু সমাধানের পথও থাকে। নিজেদের সমস্যার সমাধান নিজেদেরই করতে হবে। বাইরে থেকে কেউ করে দেবে, তার আশায় বসে থাকা ঠিক নয়। আমি ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ সমাধান চাই। ৫ মার্চ সিরডাপ মিলনায়তনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও সার্কের মধ্যে সহযোগিতাবিষয়ক এক আন্তর্জাতিক সেমিনারে দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংকট সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংকটে হতাশ নই বলে মন্তব্য করেন বিচারপতি হাবিবুর রহমান। তিনি বলেন, দেশের অবস্থা নাজুক বলে তো আর চুপ করে থাকা যায় না, পালিয়েও যাওয়া সম্ভব নয়। গণতন্ত্রে ভিন্নমত থাকবে। কিন্তু মতবিনিময় না হলে সমঝোতা সম্ভব নয়। রাজনৈতিক সংকট সমাধানে আমাদেরই একটি কর্মপন্থা খুঁজে বের করতে হবে। দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংকট তার কোন সুপারিশ আছে কিনা না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আমার কিছু বলার নেই, শেখারও নেই, কোন সুপারিশও নেই। দুই নেত্রী এক টেবিলে বসলে সংকট সমাধান হবে বলে অনেকেই মত দিয়েছেন, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তা মনে করি না। সেমিনারে তিনি আরও বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার সহযোগিতা বাড়াতে আমাদের মাইন্ড সেট-এর দিকে নজর দিতে হবে, যেটি আমাদের সহযোগিতায় কাজে আসতে পারে। তিনি বলেন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম এ অঞ্চলের মানবাধিকারের কথা বলতেন। কিন্তু আমরা আঞ্চলিক সাম্প্রদায়িক সংঘাতে ভুগতে থাকি। তিনি বলেন, সেনজেন ভিসার মাধ্যমে ইউরোপীয় ইউনিয়নের আন্তঃসহযোগিতা আরও বেড়েছে। কিন্তু এ অঞ্চলে সে ধরনের ফ্রি ভিসার প্রচলন নেই। তবে সেক্ষেত্রে সার্ক একটি ভূমিকা রাখতে পারে। সার্কের উন্নয়নে পর্যবেক্ষক হিসেবে ইউরোপীয় ইউনিয়নেরও ভূমিকা আছে। তিনি বলেন, ইইউ সংখ্যালঘিষ্ট ও আদিবাসীদের জন্য ভালো কাজ করছে। এটি আমরাও করার চেষ্টা করছি।

সাউথ এশিয়া ইয়ুথ ফর পিস অ্যান্ড প্রসপারিটি সোসাইটি আয়োজিত দিনব্যাপী এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিচারপতি হাবিবুর রহমান। অনুষ্ঠানে অন্যান্য অতিথির মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক কূটনীতিক সিএম শফি সামী, ভারতীয় হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি ডা. মনোজ কুমার মহাপাত্র, পাকিস্তান হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি আইমার আহমেদ আতজাই, ডেইলি সান পত্রিকার সম্পাদক প্রফেসর ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক প্রফেসর ড. ইমতিয়াজ আহমেদ। তথ্য সূত্র: দৈনিক যুগান্তর।

Loading...