বিছানা আপনাকে জানিয়ে দেবে শিশু সুস্থ রয়েছে কি না

এই ‘স্মার্ট ন্যাপি ম্যাট’র কারণে শিশুর বাবা-মা তার নবজাতকের স্বাস্থ্যের ওপর খুব সহজেই নজর রাখতে পারবেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শিশুর সুস্থ্যতা নিয়ে বাবা-মায়ের নানা চিন্তার অন্ত থাকে না। তাছাড়া খুব সামান্য কারণেও শিশু অসুস্থ্য হয়ে পড়তে পারে। তবে এবার আপনাকে আর চিন্তা করতে হবে না। কারণ বিছানা আপনাকে জানিয়ে দেবে আপনার শিশু সুস্থ রয়েছে কি না।

শিশুর শারীরিকভাবে বেড়ে ওঠা ও তার বিকাশের উপর নজর রাখার জন্যে একটি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে বিশেষ ধরনের ন্যাপি ম্যাট। এই ন্যাপি ম্যাট এক ধরনের বিছানা বা মাদুরের মতোই। মূলত এর উপরে শুইয়ে শিশুর ন্যাপি বদল করা হয়।

নতুন প্রযুক্তির এই বিছানার নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্মার্ট ন্যাপি ম্যাট’। প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বলেছে, এই ‘স্মার্ট ন্যাপি ম্যাট’র কারণে শিশুর বাবা-মা তার নবজাতকের স্বাস্থ্যের ওপর খুব সহজেই নজর রাখতে পারবেন।

শিশুকে এই বিছানার ওপর শুইয়ে দিলেই মোবাইল ফোনে ইন্সটল করা অ্যাপে চলে আসবে নানা রকম স্বাস্থ্য তথ্য। এই দুটোই যুক্ত থাকবে ব্লু টুথের মাধ্যমে।

শিশুদের স্বাস্থ্যগত যেসব তথ্য পাওয়া যাবে তার মধ্যে রয়েছে- শিশুর ওজন, লম্বায় কতোটুকু, এক সপ্তাহ পূর্বে কতো ওজন ছিলো, শিশুর ন্যাপি কখন বদল করতে হবে, শিশু প্রয়োজন মতো ঘুমিয়েছে কি না- এমন নানা তথ্য।

সংবাদ মাধ্যমকে এক নবজাতকের মা এরিন মেরানি বলেছেন, “আমার সন্তান যখন জন্ম নেয় তখন ও খুব ছোট্ট বাচ্চা ছিলো। তার ওজন তেমন একটা বাড়ছিলো না। যে কারণে আমার ভীষণ দুশ্চিন্তা হচ্ছিলো। তবে এখন আমি ওকে ন্যাপি ম্যাটের ওপর শুইয়ে দিয়ে নিয়মিতভাবে ওর ওজন মেপে নিতে পারছি। আমাকে যখন তখন শিশু ডাক্তারের কাছে যেতে হচ্ছে না। ঘরে বসেই এই কাজটি আমি করতে পারছি। কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই। যে কারণে আমি বলবো এটা একটা বড় রকমের শান্তি।”

এই স্মার্ট ন্যাপি ম্যাট প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান হ্যাচ বেবির প্রধান নির্বাহী অ্যান ক্রেডিট ভাইস বলেছেন, এই অ্যাপের সাহায্যে আরও জানা যাবে শিশুর ন্যাপি কখন বদল করতে হবে, শিশু প্রয়োজন মতো ঘুমিয়েছে কি না, আবার খেয়েছে কি না।

“আমরা নানা রকমের পরামর্শও দেই। অন্যান্য শিশুর বেড়ে ওঠার পাশাপাশি আপনার সন্তানের শারীরিক বিকাশের ব্যাপারেও আমরা নানা রকমের টিপস দিয়ে থাকি। স্বাস্থ্যগত পরামর্শ থেকে শুরু করে শারীরিক নানা বিষয়ে এসব পরামর্শ দেওয়া হয়। তখন পিতামাতারা সহজেই বুঝতে পারেন যে তাদের শিশুর কোথাও কোন সমস্যা হচ্ছে কীনা,” বলেন তিনি।

তবে অনেক চিকিৎসক বলেছেন, এতোতথ্য বাবা-মায়ের মানসিক চাপ আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। কারণ হলো এসবের হয়তো কোনো প্রয়োজনই ছিলো না।

এ বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে যুক্তরাষ্ট্রে সিয়াটল চিলড্রেন্স হসপিটালের চিকিৎসক ড. ওয়েনডি সু সুয়ানসন বলেন, “আপনি যদি এতো সব তথ্য উপাত্তের দিকে খুব বেশি মনোযোগ দেন, তাহলে সারাদিনই আপনাকে এসব বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকতে হবে। আপনাকে সারাক্ষণই নানা রকমের নম্বরের পেছনে ছুটাছুটি করতে হবে। যে কারণে আপনি আপনার শিশুকে সময় মতো দেখাশোনা করতে পারবেন না, পারবেন না তাকে গান গেয়ে শোনাতেও। যে কারণে আপনার ঘুমও নষ্ট হতে পারে। অতিরিক্ত অপ্রয়োজনীয় এসব তথ্যে অনেক ক্ষতি হতে পারে বাব-মায়ের এমন কি এর পরিণতিতে শিশুরও।”

তবে এই স্মার্ট ন্যাপি ম্যাট প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা এর ঠিক উল্টো কথায় বলেছেন। তারা বলেছেন, এর ফলে শিশুর বেড়ে উঠার ওপর নজর রাখার ব্যাপারে বাবা-মায়ের কাজ আরও সহজ হয়ে উঠবে।

তারা বলেছেন যে, এই প্রযুক্তিটি তারা আরও উন্নততর করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। যেমন শিশুকে ম্যাটের ওপর শুইয়ে দেওয়ার পর বর্তমানে পকেট হতে মোবাইল ফোন বের করে অ্যাপটি চালু করতে হয়। তবে ভবিষ্যতে হয়তো ফোনটি হাতে নেওয়ারও প্রয়োজন পড়বে না।

Advertisements
Loading...