নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আবারও আলোচনার উদ্যোগ

বিশ্বের প্রভাবশালী রাষ্ট্রসহ ৭ দেশ জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টনিও গুয়াতেরেজকে অনুরোধ করেছেন

A Rohingya Muslim boy, who crossed over from Myanmar into Bangladesh, plead to aid workers to give him a bag of rice during distribution near Balukhali refugee camp, Bangladesh, Thursday, Sept. 21, 2017.(AP Photo/Dar Yasin)

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আবারও আলোচনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়টিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, বিশ্বের প্রভাবশালী রাষ্ট্রসহ ৭ দেশ জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টনিও গুয়াতেরেজকে অনুরোধ করেছেন যে, তিনি যেনো মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর চলমান নির্যাতন নিয়ে আবারও নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা করেন।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কাজাখস্তান, মিসর, সেনেগাল ও সুইডেন জাতিসংঘ মহাসচিবকে এই আলোচনার জন্য আহ্বান জানিয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের ইথিওপিয়ান কাউন্সিল-এর বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ওই আলোচনার জন্য সম্ভাব্য দিনক্ষণ নির্ধারণে শলাপরামর্শও চলছে।

ইতিপূর্বেও দুই দফায় মিয়ানমারের রাখাইনের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা হয়েছে। সবশেষ আলোচনার পর ঐক্যমতের ভিত্তিতে একটি বিবৃতিও দেয় জাতিসংঘের এই নিয়ন্ত্রক সংস্থা। সেই প্রস্তাবে চলমান সহিংসতা বন্ধ করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

মিয়ানমারের রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের প্রথম আলোচনা অনুষ্ঠিত হয় আগস্টের শেষে। মিয়ানমারের ‘জাতিগত নিধন’ নিয়ে আলোচনার জন্য যুক্তরাজ্য ২৯ আগস্ট আগ্রহ প্রকাশ করে ও ৩০ আগস্ট আলোচনার দিন ধার্য হয়। রুদ্ধদ্বার বৈঠকে রাখাইন এবং রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা মিয়ানমারের এই দুইপক্ষের মধ্যে সহিংসতা বন্ধ এবং মানবিক সহায়তা অব্যাহত রাখা ও রাখাইন পরামর্শক কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়নের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেন।

রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে পরিষদের দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় চলতি বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর। ৯ বছর পর নিরাপত্তা পরিষদের সব সদস্যের ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে এক বিবৃতিও দেওয়া হয়। ওই বিবৃতিতে চলমান সহিংসতায় চরম উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এই ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে সেখানকার সহিংসতা বন্ধেরও আহ্বান জানানো হয়েছে।

জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত ম্যাথিউ রাইক্রফট এক বিবৃতিতে বলেছেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে মাত্রাতিরিক্ত বলপ্রয়োগের ঘটনায় পরিষদ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এর নিন্দা এবং তা অবিলম্বে বন্ধের আহ্বান জানাচ্ছে। রাখাইন রাজ্য এবং রোহিঙ্গাদের ওপর বিপর্যয় নেমে এসেছে বলেও মন্তব্য করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত ম্যাথিউ রাইক্রফট।

অপরদিকে জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের দূত নিকি হ্যালি জানান, মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমরা যে ট্র্যাজেডির শিকার হচ্ছেন তাতে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান বন্ধ করতে মিয়ানমারের নেতা অং সান সু চি এবং দেশটির সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের ‘চাপ’ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...