The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

২০১৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা

তথ্যমন্ত্রণালয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬ ঘোষণা করেছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ২০১৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এ বছর বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে যারা পুরস্কৃত হলেন তার নামগুলো দেখে নিন।

২০১৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা 1

তথ্যমন্ত্রণালয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬ ঘোষণা করেছে। এই সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন প্রকাশ করা হয়েছে। এবার ২৬টি ক্যাটাগরিতে মোট ৩২ জনের নাম ঘোষণা করা হয়।

আয়নাবাজি চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার পাবেন চঞ্চল চৌধুরী। এবার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার পাচ্ছেন অস্তিত্ব ছবিতে অভিনয়ের জন্য নুসরাত ইমরোজ তিশা ও শঙ্খচিলে অভিনয়ের জন্য অভিনেত্রী কুসুম শিকদার। অপরদিকে আয়নাবাজি ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক হিসেবে পুরস্কারে ভূষিত হচ্ছেন অমিতাভ রেজা চৌধুরী।

সব বিষয় মিলিয়ে ৭টি ক্যাটারিতে সর্বাধিক পুরস্কার জিতেছে আয়নাবাজি চলচ্চিত্রটি। ২০১৬ সালের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয়েছে অজ্ঞাতনামার। শ্রেষ্ঠ গায়ক হচ্ছেন ওয়াকিল আহমেদ ও শ্রেষ্ঠ গায়িকা মেহের আফরোজ শাওন।

পার্শ্ব চরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হচ্ছেন আলী রাজ ও ফজলুর রহমান বাবু এবং পার্শ্ব চরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হচ্ছেন তানিয়া আহমেদ।

২০১৬ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা 2

একনজরে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬ এর তালিকা দেখে নিন:

শ্রেষ্ঠ অভিনেতা প্রধান চরিত্র: চঞ্চল চৌধুরী, আয়নাবাজি।

শ্রেষ্ঠ পরিচালক: অমিতাভ রেজা চৌধুরী, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী প্রধান চরিত্র: যৌথভাবে তিশা, (অস্তিত্ব) ও কুসুম শিকদার, (শঙ্খচিল)।

শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র: ঘ্রাণ, প্রযোজক এস এম কামরুল আহসান।

শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র: জন্মসাথী, প্রযোজক একাত্তর মিডিয়া লি. এবং মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রাভিনেতা: যৌথভাবে আলীরাজ, (পুড়ে যায় মন) ও ফজলুর রহমান বাবু, (মেয়েটি এখন কোথায় যাবে)

শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রাভিনেত্রী: তানিয়া আহমেদ, (কৃষ্ণপক্ষ)।

শ্রেষ্ঠ খল-অভিনেতা: শহীদুজ্জামান সেলিম, (অজ্ঞাতনামা)।

শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী: আনুম রহমান খান সাঁঝবাতি, (শঙ্খচিল)।

শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক: ইমন সাহা, (মেয়েটি এখন কোথায় যাবে)।

শ্রেষ্ঠ নৃত্যপরিচালক: হাবিব, (নিয়তি)।

শ্রেষ্ঠ গায়ক: ওয়াকিল আহমেদ, (দর্পণ বিসর্জন), গান- অমৃত মেঘের বারি।

শ্রেষ্ঠ গায়িকা: মেহের আফরোজ শাওন, (কৃষ্ণপক্ষ), গান- যদি মন কাঁদে।

শ্রেষ্ঠ গীতিকার: গাজী মাজহারুল আনোয়ার, (মেয়েটি এখন কোথায় যাবে), গান- বিধিরে ও বিধি।

শ্রেষ্ঠ সুরকার : ইমন সাহা, গান- বিধিরে ও বিধি।

শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার: তৌকীর আহমেদ, (অজ্ঞাতনামা)।

শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা: রুবাইয়াত হোসেন, (আন্ডার কনস্ট্রাকশন)।

শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার: অনম বিশ্বাস ও গাউসুল আলম, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ শিল্পনির্দেশক: উত্তম গুহ, (শঙ্খচিল)।

শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক: রাশেদ জামান, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ সম্পাদক: ইকবাল আহসানুল কবির, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক: রিপন নাথ, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজসজ্জা: যৌথভাবে সাত্তার, নিয়তি ও ফারজানা সান, (আয়নাবাজি)।

শ্রেষ্ঠ মেকাপম্যান: মানিক, (আন্ডার কনস্ট্রাকশন)।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...