The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

আর নয় হ্যালো-হাই, এখন থেকে হবে সালাম বিনিময়: সালামের গুরুত্ব জানুন

সবচেয়ে কৃপণ হচ্ছে সেই ব্যক্তি যে সালাম দিতেও কৃপণতা করে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু’ এই সালামের উত্তর হিসেবে আপনি বলবেন,
‘ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু’। এই সালামের এত ফজিলত এবং এত গুরুত্ব যে, পবিত্র কোরআনে একাধিক আয়াতে আল্লাহ সালামের কথা উল্লেখ করেছেন। শুধু তাই নয় বিশ্ব নবী,  রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম একাধিক হাদিসের মধ্যে সালামের গুরুত্ব, ফজিলত এবং সুফল বর্নণা করেছেন। আজ আমরা জানবো সালাম সম্পর্কে আল্লাহ এবং তার রাসুলের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বাণী।

সালাম সম্পর্কিত কোরআনের কিছু আয়াতসমুহঃ

১। আল্লাহ্ তা‘আলা বলেন, “হে মুমিনগণ, তোমরা নিজেদের গৃহ ছাড়া অন্য কারও গৃহে প্রবেশ করো না, যতক্ষণ না তোমরা অনুমতি নেবে এবং গৃহবাসীদেরকে সালাম দেবে। এটাই তোমাদের জন্য কল্যাণকর, যাতে তোমরা উপদেশ গ্রহণ কর”। [সূরা নূর, আয়াত: ২৭]

২। “অতঃপর যখন তোমরা ঘরে প্রবেশ করবে তখন তোমাদের স্বজনদের প্রতি সালাম বলবে, এটা আল্লাহর পক্ষ থেকে বরকতপূর্ণ ও পবিত্র দোয়া”। [সূরা নূর, আয়াত: ৬১( আংশিক)]

৩। “আর যখন তোমাদেরকে সালাম দেয়া হবে তখন তোমরা তার চেয়ে উত্তম সালাম দেবে। অথবা জবাবে তাই দেবে”। [সূরা নিসা, আয়াত: ৮৬]

৪। স্বয়ং আল্লাহ তা’আলা জান্নাতবাসীদেরকে স্বাগত জানাবেন, “পরম দয়ালু মালিকের পক্ষ থেকে তাদের (স্বাগত জানিয়ে) বলা হবে, (তোমাদের ওপর) সালাম (বর্ষিত হোক)” । (সূরা ইয়াসীন, আয়াত ৫৮)

কয়েকটি হাদিসের বাণীঃ

১। আব্দুল্লাহ ইবন আমর ইবনুল ‘আস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,
“এক ব্যক্তি রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে প্রশ্ন করল, হে আল্লাহর রাসূল! ইসলামে কোন আমলটি সর্ব উত্তম? উত্তরে রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বললেন, মানুষকে খানা খাওয়ানো এবং তুমি যাকে চিনো আর যাকে চিনো না সবাইকে সালাম দেয়া” । [বুখারি ও মুসলিম]

২। হযরত আবূ হুরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত হাদীসে মহানবী (সাঃ) ইরশাদ করেছেন-
আল্লাহ তা’য়ালা আদমকে যখন সৃষ্টি করলেন, তখন বললেন, “যাও, অবস্থানরত ফেরেস্তাদের দলটিকে সালাম করো। আর তাঁরা তোমার সালামের কী উত্তর দেয় তা শ্রবণ করো। তাই হবে তোমার এবং তোমার সন্তানদের সালাম-এর পদ্ধতি।” তখন আদম (আ) বললেন- “আস-সালামু আলাইকুম”। জবাবে ফেরেশতাগণ বললেন, আস-সালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। রাসূলুল্লাহ (স.) বলেন, “তারা ওয়া রাহমাতুল্লাহ অংশটি বৃদ্ধি করে বলেছেন”।
(বুখারী, মুসলিম, মিশকাত হা/৪৬২৮)

৩। আবু উমারা-আল বারা ইব্‌ন আযেব রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, তিনি বলেন,
“রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ আমাদের সাতটি বিষয়ে নির্দেশ দেন: ১। রুগীকে দেখতে যাওয়া, ২। জানাযার সালাতে অংশ গ্রহণ করা, ৩। হাঁচির উত্তর দেয়া, ৪। দুর্বলদের সাহায্য করা, ৫। অত্যাচারিত লোককে সহযোগিতা করা, ৬। সালামের প্রসার করা, ৭। শপথকারীকে মুক্ত করা” । বুখারি ও মুসলিম।

৪। আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন,
“তোমরা ততক্ষণ পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করবে না যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হতে পারবে না। আর ততক্ষণ পর্যন্ত তোমরা পরিপূর্ণ ঈমানদার হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা একে অপরকে ভালবাসবে না, আমি কি তোমাদেরকে এমন একটি জিনিস বাতলেয়ে দেব যা করলে, তোমরা পরস্পর পরস্পরকে ভালো বাসবে? তারপর তিনি বললেন, তোমারা বেশি বেশি করে সালামকে প্রসার কর” । [মুসলিম] ।

৫। আবু ইউসুফ আব্দুল্লাহ ইবন সালাম রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, তিনি বলেন,
“আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, হে মানব সকল! তোমরা সালামের প্রসার কর, মানুষকে খানা খাওয়াও, আত্মীয়তা সম্পর্ক বজায় রাখ, আর মানুষ যখন ঘুমায়, তখন তুমি সালাত আদায় কর। তাহলে তুমি নিরাপদে জান্নাতে প্রবেশ করবে। ( তিরমিযী)

৬। আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন,
আরোহী ব্যক্তি পায়ে হাটা ব্যক্তিকে সালাম দেবে আর পায়ে হাটা ব্যক্তি বসা ব্যক্তিকে সালাম দেবে। আর অল্প ব্যক্তি বেশি ব্যক্তিকে সালাম দেবে। বুখারি ও মুসলিম ।

৭। আবু উমামা ছুদাই ইব্‌ন ‘আজলান আল বাহেলী রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন, “আল্লাহর নিকট সর্ব উত্তম ব্যক্তি সে, যে মানুষকে আগেই সালাম দেয়”। [আবু-দাউদ উত্তম সনদ]

৮। ইমাম তিরমিযী আবু উমামা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, “রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ কে জিজ্ঞাসা করা হল, হে আল্লাহর রাসূল! দুইজন ব্যক্তির মধ্যে যখন সাক্ষাত হবে, তখন কোন লোকটি প্রথমে সালাম দেবে? রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বললেন, ‘তাদের দুই জনের মধ্যে যে আল্লাহর অধিক কাছের লোক সে আগে সালাম দেবে’। [ তিরমিযী]

৯। আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু’ হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ বলেন,
“তোমরা যখন তোমার অপর ভাইয়ের সাথে সাক্ষাত করবে, তাকে সালাম দেবে। যদি তারা গাছ, দালান বা পাথরের আড়াল হয়, তারপর পুনরায় দেখা হয়, তাহলেও যেন তোমরা তাকে আবার সালাম দাও”। [ আবু-দাউদ ]

১০। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,
“সবচেয়ে অক্ষম হচ্ছে সেই ব্যক্তি যে [আল্লাহ্র নিকট] দু’আ করতে অক্ষম। আর সবচেয়ে কৃপণ হচ্ছে সেই ব্যক্তি যে সালাম দিতেও কৃপণতা করে।”
(সিলসিলাতুল আহাদীসিস সাহীহাহ, হাদীস ৬০১)

এছাড়া মনে রাখবেন-

১. কোন মুসলমানের সাথে সাক্ষাতের সময় তাকে  সালাম দেওয়া সুন্নাত।
২. সালাম করার সময় অন্তরে যেন এ নিয়্যত থাকে যে, আমি যাকে সালাম জানাচ্ছি তার সম্পদ আমার হিফাযতে এবং আমি এসব কিছুর কোন বিষয়ে হস্তক্ষেপ করাকে হারাম মনে করছি।
৩। আগে সালাম দেওয়া সুন্নাত। কারণ আমাদের রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম আগে সালাম দিতেন।

৪। সালামের উত্তর সাথে সাথে এতটুকু আওয়াজে উত্তর দেওয়া ওয়াজিব যেন সালাম প্রদানকারী শুনতে পায়।

তাহলে আজ থেকে আমরা সবাই একে-অপরের সাথে সালাম বিনিময় করবো। আমরা সালামের প্রচলনের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করবো। একে অপরের শান্তি কামনা করে দোয়া করবো এবং সওয়াবের অংশীদার হবো । আল্লাহ আমাদের সালামের আমল করার তৌফিক দান করুন । আমীন ।

পোষ্টটি আপনার কোন বন্ধু বা আত্মীয়-স্বজনকে শেয়ার করে তাদেরকে সালামের গুরুত্ব সম্পর্কে জানতে সাহায্য করুন।

Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx