The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

দিল্লিতে মদ কিনলে ‘করোনা কর’ দিতে হবে ৭০%!

দীর্ঘদিন লকডাউন থাকার পর ভারতে বিভিন্ন রাজ্যে মদের দোকানগুলো খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মদ আমাদের দেশে নিষিদ্ধ পণ্য হলেও বহির্বিশ্বে এটি প্রকাশ্যে বিক্রি হয়ে থাকে। যেমনটি হয় ভারতে। তবে করোনার কারণে এটির ওপর অধিক শুল্ক আরোপিত হয়েছে। দিল্লিতে মদ কিনলে ‘করোনা কর’ দিতে হবে ৭০%!

দিল্লিতে মদ কিনলে ‘করোনা কর’ দিতে হবে ৭০%! 1

দীর্ঘদিন লকডাউন থাকার পর ভারতে বিভিন্ন রাজ্যে মদের দোকানগুলো খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। গত সোমবার থেকেই কার্যকর হয়েছে বিশেষ সেই নির্দেশনাটি। দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকারও করোনাকালে মদ কেনার ওপর ৭০ শতাংশ ‌‘করোনা কর’ আরোপ করে এক নির্দেশনা জারি করেছে বলে সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে মদের দোকান খোলার ওপর কেন্দ্রীয় নির্দেশনা জারির পর ভারতে মদ কিনতে দোকানে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে দেশটির মানুষ। মানা হচ্ছে না সেখানকার সামাজিক দূরত্ব। দিল্লিতে ভিড় সামলাতে পুলিশকে লাঠিচার্জও করতে হয়েছে। তাই এমন পরিস্থিতিতেই মদের ওপর বিশেষ কর বসানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে দিল্লি সরকার।

সোমবার দিল্লি সরকার ঘোষিত ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে যে, এখন যারা মদ কিনবেন তাদের অতিরিক্ত ৭০ শতাংশ হারে ‘করোনা কর’ দিতে হবে! মঙ্গলবার অর্থাৎ ৫ মে থেকেই দেশটির জাতীয় রাজধানী অঞ্চল দিল্লিতে কার্যকর হয়েছে বর্ধিত মূল্যে মদ কেনা সংক্রান্ত এই নির্দেশনাটি।

৫ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর সোমবার হতে দিল্লির মদের দোকানগুলো খুলে দেওয়া হয়। এর সঙ্গে সঙ্গে শত শত মানুষ দোকানের সামনে ভীড় করতে শুরু করে দেয়। সরকারি এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এই বিষয়ে বলেন, মদ কিনতে গিয়ে সামাজিক দূরত্বের নিয়ম না মানায় পরিস্থিতি প্রতিকূলে গেলে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেন, ‘এটি দুর্ভাগ্যজনক যে আজ দিল্লির কয়েকটি দোকানে অরাজকতা দেখা যাচ্ছে। যদি আমরা কোনো অঞ্চল থেকে সামাজিক দূরত্ব এবং অন্যান্য নিয়ম লঙ্ঘনের বিষয়ে জানতে পারি তাহলে সেই অঞ্চল সিল করে শিথিলতা বাতিল করা হবে।’

কেজরিওয়াল অবশ্য বলেছেন যে, লকডাউনের কারণে রাজ্য সরকারের আয় গত বছরের তুলনায় এই বছর অনেকটা কমে গেছে। সেদিক থেকে মদের উপর ৭০ শতাংশ অতিরিক্ত কর বাবদ ‘‌করোনা ফি’‌ এর ফলে রাজস্ব বাড়বে অনেকখানি।

তবে মদের ক্রেতারা অবশ্য এই অতিরিক্ত মূল্য পরিশোধে কোনো আপত্তিই করেননি! তারা বলেছেন, ‘এই কর দিতে আমাদের কোনোই অসুবিধা নেই। এটা তো দেশের জন্যই দান করছি।’ তাই করারোপের পরও মদের দোকানগুলোতে দেখা যাচ্ছে লম্বা লম্বা লাইন, মদ প্রেমীদের আনন্দে যে ভাটা পড়েনি তা স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে এ পর্যন্ত ৪৬ হাজার ৪৩৩ জন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে ১ হাজার ৫৬৮ জন মারাও গেছেন। সুস্থ হয়েছেন ১৩ হাজারের মতো।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...