The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষার যেভাবে হবে মূল্যায়ন

মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসের কারণে এই বছর মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষাও হবে না

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ করোনার কারণে স্কুলগুলোর পরীক্ষাও এবার হচ্ছে না। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উত্তীর্ণ হওয়ার বিষয়টি মূল্যায়ন করা হবে।

মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষার যেভাবে হবে মূল্যায়ন 1

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসের কারণে এই বছর মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষাও হবে না। তবে অ্যাসাইনমেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উত্তীর্ণ হওয়ার বিষয়টি মূল্যায়ন করা হবে। আজ বুধবার (২১ অক্টোবর) দুপুরে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ৩০ দিনের মধ্যেই শেষ করা যায় এমন সিলেবাস তৈরি করেছে পাঠ্যপুস্তক বোর্ড। এই সিলেবাসটিই সব প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছে পাঠানো হবে। প্রতিষ্ঠান হতে শিক্ষার্থীদের সেই সিলেবাসের ওপর অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। শিক্ষার্থীরাও সেই অ্যাসাইনমেন্ট করে স্কুলে জমা দেবেন। তার ভিত্তিতেই স্কুলগুলো নিজ নিজ শিক্ষার্থীর মূল্যায়ন করবে।

ইতিমধ্যে করোনার কারণে গত মার্চ হতে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষাখাতে প্রায় স্থবিরতা নেমে এসেছে। তবে শ্রেণীকক্ষে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকলে পাঠদানের ধারাবাহিকতা রক্ষায় অনলাইন, টিভি এবং বেতারের মাধ্যমে পাঠদান চালিয়ে আসছে সরকার।

মহামারি করোনার কারণে পঞ্চম শ্রেণীর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা, অষ্টম শ্রেণীর জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা ও সর্বশেষ এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা বাতিল করা হয় এ বছর। প্রাথমিক স্তর ও অষ্টম শ্রেণীর সমাপনীর বদলে নিজ নিজ বিদ্যালয়ে মূল্যায়ন করে পরবর্তী শ্রেণীতে উন্নীতের সিদ্ধান্ত হলেও এইচএসসির শিক্ষার্থীদের জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ভিত্তিতেই ফল প্রকাশ করা হবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ার পর গত ১৭ মার্চ হতে দেশের সকল ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। কওমি মাদ্রাসা বাদে অন্যসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা রয়েছে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...