The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

তেতো সবজি করোলা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভীষণ তিতা একটি তরকারি হলো করোলা। তবে তিতা হলেও পুষ্টিগুণে ভরপুর করোলা। ইংরেজিতে এ জন্য তরকারিটির নাম দেওয়া হয়েছে বিটার মেলন।

তেতো সবজি করোলা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে 1

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা যায়, অপছন্দনীয় এই সবজিটিই দূর করতে পারে ক্যান্সারের মতো মারণ ব্যধি, ডায়াবেটিসের মতো রোগ। বাংলাদেশের বারডেম হাসপাতালের গবেষণায়ও ইতিপূর্বে ডায়াবেটিস রোগে করলার ভূমিকার কথা বিজ্ঞানীরা জানতে পারেন।

করলা দূর করে নানা ধরনের মারাত্মক সব শারীরিক সমস্যাও। যদিও এর তেতো স্বাদের কারণে অনেকের মুখে রোচে না বা নাক ছিটকান, কিন্তু শুধু স্বাদের কথা ভেবে স্বাস্থ্যে উপকারিতা এবং মিঠাগুণের কথা একেবারেই ভুলে গেলে চলবে না।

দ্য নেভাডা সেন্টার অব অল্টারনেটিভ অ্যান্ড অ্যান্টি এইজিং মেডিসিনের বিশেষজ্ঞ ড. ফ্রাঙ্ক শ্যালেনবার্গার এবং তার সহযোগীরা গবেষণা করে দেখতে পেয়েছেন যে, করোলা ক্যান্সারের কোষ বৃদ্ধির প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। তিনি তার নতুন গবেষণায় আরও দেখতে পান, করলার রস পানিতে মাত্র ৫ শতাংশ মিশ্রিত হয়ে থাকে, যা প্রমাণ করে এটি অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও কাজ করে।

গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন যে, করোলার প্রায় ৯০-৯৮ শতাংশ পর্যন্ত ক্যান্সারের কোষ ধ্বংসের ক্ষমতা বিদ্যমান। দ্য ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডোর একটি গবেষণায় দেখা যায় যে, করোলা অগ্ন্যাশয়ের টিউমার প্রায় ৬৪ শতাংশ কমিয়ে আনতে পারে।

ড. শ্যালেনবার্গার তার গবেষণায় আরও দেখতে পান, উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা, ত্বকের ইনফেকশন, অ্যাজমা, ডায়াবেটিস ও পাকস্থলীর নানা সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারে শুধু এই একটি সবজি আর তা হলো ‘করোলা’। খুব কম ক্যালরিসমৃদ্ধ করোলায় রয়েছে পটাশিয়াম, বেটাক্যারোটিন, ম্যাংগানিজ, ম্যাগনেসিয়াম, হাই ডায়াটেরি ফাইবার, ভিটামিন বি১, বি২, বি৩ ও সি, ফোলায়েট, জিঙ্ক ও ফসফরাস।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...