বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির লাশ চুরির নেপথ্যে!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মাঝে-মধ্যেই শোনা যায় বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির লাশ নাকি চুরি করা হয়! কিন্তু কেনো লাশ চুরি হয়? এ প্রশ্ন সকলের মনে। আজ রয়েছে বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির লাশ চুরির নেপথ্য কাহিনী।

black-lightning-death-and-concept-01

বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির লাশ সম্পর্কে তথ্য হলো, বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির শরীর নাকি প্রাকৃতিক চুম্বকে পরিণত হয় – এমন ধারণা অনেকের। তবে এটি আসলে একটি ভুল ধারণা। সে করণেই বজ্রপাতে নিহত ব্যক্তির লাশ প্রায় চুরি হওয়ার ঘটনা ঘটতো। তবে মানুষ এখন অনেকেই জানে যে, এই লাশে তেমন কোনো বিশেষত্ব নেই, আর তাই বর্তমানে বজ্রপাতে মৃত ব্যক্তির লাশ চুরি হওয়ার প্রবণতা অনেক কমে এসেছে।

তবে এতো কিছুর পর এখনও বেশ কিছু ভুল ধারণা মানুষের মধ্যে বিদ্যমান। সে কারণে এখনও বজ্রপাতে মৃত ব্যক্তির লাশ চুরি হওয়ার ঘটনা ঘটে থাকে৷

জানা যায়, বজ্রপাতে মৃত ব্যক্তির শরীরের বিশেষ বিশেষ হাড় প্রেত সাধনার কাজে নাকি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যারা এসব বিষয়গুলো বিশ্বাস করে, তাদের মতে মৃত মানুষের কিছু হাড় দিয়ে বিশেষ প্রক্রিয়ায় সাধনা করলে অলৌকিক ক্ষমতা অর্জন করা যায়! তবে সাধারণভাবে মৃত মানুষের চেয়ে বজ্রপাতে মৃত মানুষের হাড় নাকি অনেক বেশি কার্যকর।

তবে এই বজ্রপাতে মৃত ব্যক্তির লাশ রহস্য নিয়ে জানা যায়, যেখানে বজ্রপাত হয় তার আশে-পাশে কিছু খনিজ টুকরা পাওয়া যায়। পাহাড়ীরা ওইসব খনিজ টুকরা সংগ্রহ করে রাখে। এর কারণ হলো, তাদের দৃঢ় বিশ্বাস, এই খনিজ পদার্থ ঝাঁড় ফুকে উপকারে আসে।

ওইসব কারণে যেসব ব্যক্তির উপর বজ্র সরাসরি আঘাত হানে, সেই শরীরের আশেপাশে খনিজ পর্দাথটি পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই মানুষ হুজুগের বষে এই লাশ চুরি করার মতো কাজটিও করে বসেন। কিন্তু বাস্তবে এমন কোনো ঘটনা না দেখে পরে মাথা চুলকানো ছাড়া আর কোনো উপায় থাকেনা তাদের!

Loading...