গ্যাস বিস্ফোরণে কুয়েটের এক শিক্ষার্থী নিহত : নিভে গেলো ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন

ত্রুটিযুক্ত গ্যাস-সংযোগ হতে শনিবার রাতে বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ময়মনসিংহের ভালুকায় এক ভয়াবহ গ্যাস বিস্ফোরণে কুয়েটের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ৩ শিক্ষার্থী।

ময়মনসিংহের ভালুকায় এক ভয়াবহ গ্যাস বিস্ফোরণে কুয়েটের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ৩ শিক্ষার্থী। আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। নিহত ছাত্র ও আহত ছাত্র সবাই খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) এর ছাত্র। এরা সবাই টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়ছিলো।

জানা গেছে, ত্রুটিযুক্ত গ্যাস-সংযোগ হতে শনিবার রাতে বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে। প্রাথমিকভাবে এমনটিই ধারণা করছে পুলিশ।

একটি ৬ তলা বাড়ির তৃতীয় তলায় মধ্যরাতে শক্তিশালী বিস্ফোরণের এই ঘটনাটি ঘটেছে। এতে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন এবং আরও ৩ শিক্ষার্থী গুরুতরভাবে দগ্ধ হয়েছেন।

গ্যাস-সংযোগ হতে এই বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করলেও পুলিশ এ ঘটনার সঙ্গে অন্য কোনোকিছুর সম্পৃক্ততা বা নাশকতার বিষয়টিও খতিয়ে দেখছে।

বিস্ফোরণে নিহত হন তাওহীদুল ইসলাম (২৩)। তার বাড়ি বগুড়া জেলার শাজাহানপুর উপজেলার শাজাহানপুর গ্রামে। দগ্ধ ব্যক্তিরা হলেন- মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার দীপ্ত সরকার (২৩), সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার খাস সাতবাড়ি গ্রামের শাহীন মিয়া, নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার ফিটগ্রামের মো. হাফিজুর রহমান (২৩)। হতাহতরা প্রত্যেকেই খুলনার প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী। এই শিক্ষার্থীরা ভালুকা উপজেলার মাস্টারবাড়ি এলাকায় অবস্থিত স্কয়ার ফ্যাশন লিমিটেড নামে একটি পোশাক কারখানায় ইন্টার্নি কোর্স করছিলেন।

ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, ওই ঘরটিতে অবৈধ গ্যাস-সংযোগ ছিল। ওই সংযোগে ত্রুটি থাকায় গ্যাস লিক আউট হয়ে চেম্বার সৃষ্টি করলে এই ভয়াবহ বিস্ফোণের ঘটনাটি ঘটে। তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ওই বাড়িটিতে অবৈধ গ্যাস-সংযোগ ছিল বলে খোঁজ নিয়ে পুলিশকে নিশ্চিত করেছে।

এদিকে এই গ্যাস বিস্ফোরণ নিয়ে বিভিন্ন মহল নানা অপপ্রচার চালিয়েছে। অনেকেই এটিকে জঙ্গী সম্পৃক্তার আভাস দিলেও প্রকৃতপক্ষে এইসব শিক্ষার্থীরা কুয়েটের নীরিহ ছাত্র। এই বিষয়ে কুয়েটের টেক্সটাইল ডিপার্টমেন্টের অন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, এদের বিরুদ্ধে যদি কেও অভিযোগ তোলে সেটি হবে বড়ই করুনার বিষয়। এরা বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পড়ালেখা করে আর মাত্র কদিন পার হলেই পাস করে বের হতেন। শিক্ষার্থীরা বলছেন, শুধু যে বাবা-মায়ের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে তা নয়, জাতি যোগ্য একজন শিক্ষার্থীকে হারিয়েছে। শিক্ষার্থীরা এই ঘটনায় যারা জড়িত বিশেষ করে অবৈধ গ্যাস সংযোগের জন্য এই বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তি প্রদানের জন্য আহ্বান জানিয়েছে।

এদিকে এই ঘটনার পর কুয়েটের ভিসি ও প্রো-ভিসিসহ শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন বলে সর্বশেষ সংবাদে জানা গেছে।

Advertisements
Loading...