বজ্রপাত এড়িয়ে চলার কয়েকটি উপায় জেনে নিন

বাসা, অফিস ও রাস্তাঘাটে যে কোনো স্থানেই আপনি বজ্রপাতের মধ্যে পড়ে যেতে পারেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বর্তমান সময়ে বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা দিনকে দিন বাড়ছে। গত কয়েক বছরের বহু মানুষের মৃত্যু ঘটেছে বজ্রপাতে। আজ বজ্রপাত এড়িয়ে চলার কয়েকটি উপায় জেনে নিন।

বিজ্ঞান বলে, বায়ুমণ্ডলে বাতাসের তাপমাত্রা ভূ-ভাগের উপরিভাগের তুলনায় অনেক কম থাকে। এই অবস্থায় বেশ গরম আবহাওয়া দ্রুত উপরে উঠে গেলে আর্দ্র বায়ুর সংস্পর্শে চলে আসে। আর তখন গরম আবহাওয়া দ্রুত ঠাণ্ডা হওয়ায় প্রক্রিয়ার মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি হয়ে মূলত বজ্রমেঘের সৃষ্টি হয়। আর তখনই বজ্রপাতের ঘটনাটি ঘটে। সাধারণত মার্চ হতে মে ও অক্টোবর হতে নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বজ্রঝড় হয়ে থাকে বলে আবহওয়া তথ্য সূত্রে জানা যায়।

তাছাড়া কালবৈশাখেও আকাশে বিদ্যুতের ঝলকানি আমাদের চোখে পড়ে। এই সময় ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে কয়েক পশলা বৃষ্টিও হয়। মাঝে মধ্যেই বাজ পড়ে নানা দুর্ঘটনার খবর আমরা দেখতে পায়। বাসা, অফিস ও রাস্তাঘাটে যে কোনো স্থানেই আপনি বজ্রপাতের মধ্যে পড়ে যেতে পারেন। সেজন্য নিজেকে সুরক্ষিত রাখার কিছু উপায় জানিয়ে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।
বজ্রপাতে নিজেকে সুরক্ষিত রাখার এইসব উপায়গুলো আজ জেনে নিন:

# যদি আপনি দেখেন ঘন ঘন বজ্রপাত হচ্ছে তাহলে সবচেয়ে বেশি ভালো হয় যদি আপনি কোনো ভাবনের নিচে আশ্রয় নিতে পারেন। এই সময় কোনো অবস্থাতেই খোলা বা উঁচু স্থানে থাকা যাবে না।

# ফাঁকা স্থানের যাত্রী ছাউনি, উঁচু গাছ-পালা, বিদ্যুতের খুঁটি ইত্যাদিতে বজ্রপাতের সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। তাই বজ্রপাতের সময় এসব জিনিসগুলো হতে যতোটা সম্ভব দূরে থাকুন।

# বজ্রপাত ও ঝড়ের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ ইত্যাদি স্পর্শ করা হতে বিরত থাকুন। এমনকি ল্যান্ড লাইন টেলিফোনও তখন স্পর্শ করবেন না। বজ্রপাতের সময় এগুলোর সংস্পর্শ এসে অনেকেই আহত হয়েছেন এমন নজির রয়েছে।

# বজ্রপাতের সময় বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত সব যন্ত্রপাতি স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদির সংযোগ (প্লাগ খুলে) বিচ্ছিন্ন করুন। তবে বন্ধ করা থাকলেও এগুলো ধরবেন না। অব্যবহৃত যন্ত্রপাতির প্লাগ খুলে রাখুন।

# বজ্রপাতের সময় রাস্তায় গাড়িতে থাকলে যতো দ্রুত সম্ভব বাড়িতে ফেরার চেষ্টা করতে হবে। যদি প্রচণ্ড বজ্রপাত ও বৃষ্টির সম্মুখীন হন তবে গাড়ি কোনো বারান্দা কিংবা পাকা ছাউনির নিচে নিয়ে যেতে হবে। এই সময় গাড়ির কাঁচে হাত দেওয়া বিপজ্জনক। তাই গাড়ির কাঁচে হাত দেবেন না।

# বৃষ্টির সময় রাস্তায় পানি জমে যাওয়া আশ্চর্য কিছু নয়। তবে বাজ্রপাত অব্যাহত থাকলে সে সময় রাস্তায় বের না হওয়াই উত্তম। তাছাড়া বিদ্যুতের তার ছিঁড়েও দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকে। উপরন্তু কাছাকাছি কোথাও বাজ পড়লে বিদ্যুত্‍স্পৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

# বজ্রপাতের সময় চামড়ার ভেজা জুতা কিংবা খালি পায়ে থাকা খুবই বিপজ্জনক একটি বিষয়। যদি একান্ত বেরোতেই হয় তাহলে অবশ্যই পা ঢাকা জুতো পরে বের হতে হবে। রবারের গাম্বুট ধরনের জুতা এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো কাজ করে।

# বজ্রপাতের সময় বাড়িতে থাকলে জানালা হতে দূরে থাকুন। জানালার কাছে না যাওয়ায় ভালো।

Advertisements
Loading...