The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

যা জানা জরুরি: বজ্রপাত হতে বাঁচতে করণীয় জেনে নিন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ গত কয়েকদিনে বজ্রপাতে বহু মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। কিন্তু আমাদের জানা নেই প্রাকৃতিক এই দুর্যোগ হতে কীভাবে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। আজ বজ্রপাত হতে বাঁচতে করণীয় জেনে নিন।

what to do when lightning strikes

এক খবরে জানা যায়, বাংলাদেশে প্রতিবছর বজ্রপাতে গড়ে দুই হতে তিনশ’ মানুষের প্রাণহানি ঘটে থাকে। গত বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে ৫০ জনের অধিক মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রাণহানির ঘটনাগুলো ঘটেছে।

এক তথ্যে জানা যায়, সাধারণভাবে মার্চ হতে মে এবং অক্টোবর হতে নভেম্বরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বজ্রবৃষ্টি হয়ে থাকে। এ সময় পাকা বাড়ির নিচে আশ্রয় নিতে। উঁচু গাছপালা বা বিদ্যুতের লাইন হতে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

শুধু তাই নয়, যখন বিদ্যুৎ চমকানো শুরু হয় তখন জানালা হতে দূরে থাকার পাশাপাশি ধাতব বস্তু এড়িয়ে চলা, যেমন- টিভি-ফ্রিজ না ধরা, গাড়ির ভেতর অবস্থান না করা ও খালি পায়ে না থাকারও পরামর্শ দিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।

বজ্রপাতের সময় কী করা উচিত, কী উচিত নয়- সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

পরামর্শগুলো হলো:

# যদি দেখেন ঘন ঘন বজ্রপাত হচ্ছে তাহলে খোলা কিংবা উঁচু জায়গায় না থাকাই ভালো। সবচেয়ে ভালো হয় যদি কোনও ভবনের নিচে আশ্রয় নেওয়া যায়।

# বজ্রপাতের সময় উঁচু গাছপালা কিংবা বিদ্যুতের খুঁটিতে বিদ্যুৎস্পর্শের সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই বজ্রঝড়ের সময় গাছ কিংবা খুঁটির কাছাকাছি থাকা মোটেও নিরাপদ নয়। ফাঁকা জায়গায় যাত্রী ছাউনি বা বড় গাছে বজ্রপাত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

# বজ্রপাতের সময় আরও একটি কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে। তা হলো এ সময় বাড়িতে থাকলে জানালার কাছে গিয়ে উঁকিঝুঁকি মারা উচিত নয়। এ সময় জানালা বন্ধ রেখে ঘরের ভেতরে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র।

# বজ্রপাতের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ এ জাতীয় জিনিস স্পর্শ করা ঠিক হবে না। এমনকি ল্যান্ড ফোন ব্যবহার না করতেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কারণ বজ্রপাতের সময় এগুলোর সংস্পর্শ এসে অনেকেই স্পৃষ্ট হন।

# বজ্রপাতের সময় বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত যন্ত্রপাতি এড়িয়ে চলা উচিত। যেমন টিভি, ফ্রিজ ও ইন্টারনেটের ওয়াই-ফাই ইত্যাদি বন্ধ করা থাকলেও স্পর্শ করা ঠিক হবে না। বজ্রপাতের আভাস পেলে সঙ্গে সঙ্গে প্লাগ খুলে রাখা উচিত।

# বজ্রপাতের সময় যদি আপনি গাড়িতে থাকেন তাহলে যত দ্রুত সম্ভব বাড়িতে ফেরার চেষ্টা করুন। যদি তখন প্রচণ্ড বজ্রপাত এবং বৃষ্টি হয়, তাহলে গাড়ি কোনও গাড়িবারান্দা কিংবা পাকা ছাউনির নিচে রাখা যেতে পারে। ওই সময় গাড়ির কাচে হাত দেওয়াও বিপজ্জনক।

# বজ্রপাতের সময় চামড়ার ভেজা জুতা কিংবা একেবারে খালি পায়ে থাকা খুবই বিপজ্জনক। যদি একান্ত বের হতেই হয়, সেক্ষেত্রে পা ঢাকা জুতো ব্যবহার করা নিরাপদ। রাবারের গামবুট সবচেয়ে ভালো কাজ করবে। তাই সেটি ব্যবহার করতে পারেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...