শুধু মেয়র নয়, ১১৬ কাউন্সিলরের ৭৫ জনই ১৮ দলের!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ চার সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কেবল মেয়র পদেই নয়, বেশির ভাগ সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদেও ১৮-দলীয় জোট-সমর্থিত প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। এই নির্বাচন এবার দেশের জাতীয় রাজনীতিতেও প্রভাব ফেলছে।

four City Corporation election-04

চার সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থানীয় নির্বাচন হলেও এই নির্বাচন দেশের জাতীয় রাজনীতিতেও প্রভাব ফেলছে- এমনটিই ধারণা করছেন দেশের রাজনীতি সচেতন মানুষ। চার সিটি নির্বাচনের আগে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি যেমন ছিল এখন দেখা যাচ্ছে সম্পূর্ণ বিপরিত। কারণ ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগও ভাবেনি এমন ফলাফল আসবে। সবার ধারণা ছিল অন্তত দুটি আসন আওয়ামীলীগের থাকবে। কিন্তু সকলের সেই ধারণাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সবকটি মেয়র পদই ১৮ দলীয় জোটের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। আবার কাউন্সিলর পদেও একই ধরনের পরিস্থিতি বিরাজমান।

সামপ্রতিক সময়ে দেশের রাজনীতি এক ঘোলাটে অবস্থানে চলে আসে। বিশেষ করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে জামায়াতে ইসলামীর জালাও-পোড়াও রাজনীতি এবং হেফাজতে ইসলামীর রাজনীতিকে প্রবেশ দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি এক নাজুক অবস্থানে চলে আসে। ৫ মে রাতের ‘শাপলা’ অভিযানের পর হেফাজতে ইসলামীকে সরকার নিয়ন্ত্রণ করেছে বলেই বাস্তবে মনে হয়েছে। আসলে হেফাজতে ইসলামী কিছুটা দুর্বল হয়েছে। তবে তারা ভেতরে ভেতরে আবারও চাঙ্গা হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন খবর রাজনৈতিক বাজারে রয়েছে।

তবে পরিস্থিতি যেদিকেই থাকুক না কেনো চার সিটি নির্বাচনে সরকারের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছে। যদিও সরকার মুখে বলছে, গণতন্ত্রের ভিত মজবুত হয়েছে। এ সরকারের আমলে নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে তা সরকার প্রমাণ করেছে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা ভিন্ন। বাস্তবে জনগণের মধ্যে সিটি নির্বাচন নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিরোধী দল বরাবরই সরকারের দমন নীতির প্রতিবাদ করে আসছে। এবার তারা বলছে, ‘সরকারের দমন নীতি’র বহি:প্রকাশ ঘটেছে চার সিটি নির্বাচনে।’

কাউন্সিলর পদেও ১৮ দল এগিয়ে

সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১১৬ পদের মধ্যে ৭৫টিতে জয়লাভ করেছে ১৮ দলীয় জোট। আওয়ামী লীগসহ ১৪-দলীয় জোট-সমর্থিত প্রার্থীরা জিতেছেন মাত্র ৩১টিতে। আর স্বতন্ত্র হিসেবে পরিচিত প্রার্থীরা জয়লাভ করেন ১০টি পদে। সাধারণ নারী কাউন্সিলর পদে ১৮ দল-সমর্থিতরা ১৮টি ও ১৪ দল-সমর্থিতরা ১৪টি ও স্বতন্ত্রে রয়েছে ৭টি পদ।

রাজশাহী

রাজশাহী সিটি করপোরেশনে সাধারণ কাউন্সিলর পদে বিএনপির ১৮, আওয়ামী লীগের ছয় ও স্বতন্ত্র হিসেবে চার ও জামায়াতের একজন জয়লাভ করেন। ৮ নম্বর ওয়ার্ডে একটি বুথের ইভিএম মেশিনে ত্রুটি থাকায় সেখানকার ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে। আর নারী কাউন্সিলরে বিএনপির চার, আওয়ামী লীগের তিন, জামায়াতের দুই ও স্বতন্ত্র একজন বিজয়ী হন।

খুলনা

খুলনায় সাধারণ কাউন্সিলরে বিএনপির ১৮, আওয়ামী লীগের আট, স্বতন্ত্র চার ও জামায়াতের একজন জয় পেয়েছেন। নারী কাউন্সিলর পদে রয়েছেন বিএনপির চার, আওয়ামী লীগের দুই, স্বতন্ত্র চার ও জামায়াতের দুজন।

বরিশাল

বরিশালে সাধারণ কাউন্সিলর পদে বিএনপির ২০, আওয়ামী লীগের আট, জাপা ও জামায়াতের একজন করে জয় পেছেন। নারী কাউন্সিলরে রয়েছেন বিএনপির চার, আওয়ামী লীগের পাঁচ ও স্বতন্ত্রে একজন।

সিলেট

সিলেটে সাধারণ কাউন্সিলরে বিএনপির ১৩, আওয়ামী লীগের আট, জামায়াতের তিন ও স্বতন্ত্র হিসেবে দুজন জয় পেয়েছেন। একটি নির্বাচন স্থগিত রয়েছে। নারী কাউন্সিলর পদে বিএনপির চার, আওয়ামী লীগের চার ও স্বতন্ত্র হিসেবে একজন জয়লাভ করেছেন।

এভাবে প্রতিটি সিটিতেই শুধু মেয়র পদই নয় কাউন্সিলর পদেও ১৮ দলীয় জোট এগিয়ে গেছেন। উল্লেখ্য, গত ১৫ জুন এ চার সিটি করপোরেশনে নির্বাচন সম্পন্ন হয়।

Advertisements
Loading...