রেইনবো গোলাপ কিসের প্রতীক?

লাল গোলাপ ভালবাসার প্রতীক হলে রেইনবো গোলাপ কিসের প্রতীক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ একটা গান আছে, ‘চোখ যে মনের কথা বলে’ তবে মনে রাখবেন গোলাপও কিন্তু মনের কথা বলতে পারে। ফুল সবার মনকেই পুলকিত করে তোলে। প্রতিটি মানুষ ফুলকে ভালবাসে। কেউ আবার প্রিয় মানুষটিকে ভালবেসে উপহার দেয় বিভিন্ন ফুল। তার মধ্যে গোলাপ অন্যতম। অনেকেই বলে লাল গোলাপ ভালবাসার প্রতীক, সাদা গোলাপ বন্ধুত্বের প্রতীক, তাহলে রেইনবো গোলাপ কিসের প্রতীক?

প্রথমেই আমরা বিভিন্ন গোলাপের ব্যবহার সম্পর্কে জেনে নিই। অর্থাৎ কোন গোলাপ কিসের প্রতীক। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক।

লাল গোলাপঃ

প্রেমের গল্প, গান এবং কবিতা পড়লেই বোঝা যায় লাল গোলাপের মূল ব্যবহার। সৌন্দর্য এবং ভালবাসার প্রতীক লাল গোলাপ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রেমের ধরণ বদলে গেলেও প্রেম নিবেদনের ভাষা হিসেবে লাল গোলাপের আবেদন চিরন্তন।

গোলাপি গোলাপঃ

 

লাল গোলাপের পাশাপাশি মনের ভাষা বোঝাতে পারে গোলাপি গোলাপও অনেকে ব্যবহার করে থাকেন। ভালবাসা, কৃতজ্ঞতা, স্বীকৃতির প্রতীক গোলাপি গোলাপ। প্রিয় বন্ধু, নির্ভরযোগ্য সঙ্গীকে ‘থ্যাঙ্ক ইউ’ বলতে পারেন গোলাপি গোলাপ দিয়ে।

সাদা গোলাপঃ 

 

সাধারনত শোকজ্ঞাপন এবং কাওকে মিস করলে তাকে সাদা দেওয়া হয়। তবে বিয়ের সময় কনের হাতে দেওয়া হয় একগুচ্ছ সাদা গোলাপ। কেন জানেন? কারণ সাদা গোলাপকে নতুন জীবন শুরুর প্রতীকও বলা যায়। আধ্যাত্মিকতারও প্রতীক সাদা গোলাপ।

কমলা গোলাপঃ

 

আবেগ, উত্সাহ, উদ্দীপনার প্রতীক হল কমলা গোলাপ। সহকর্মীকে অনুপ্রেরণা দিতে ব্যবহার করা হয় কমলা গোলাপ। কমলা গোলাপ উপহার দিয়ে বোঝাতে পারেন, আপনি পাশে আছেন।

হলুদ গোলাপঃ

 

হলুদ গোলাপ জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পর্কের প্রতীক। কেন জানেন?কারণ হলুদ গোলাপ হল বন্ধুত্বের প্রতীক। আনন্দ, সুস্বাস্থ্য কামনা করা বোঝাতেও হলুদ গোলাপ ব্যবহার করা হয়। তাই প্রিয় বন্ধু-বান্ধবীকে হলুদ গোলাপ দিয়ে বোঝাতে পারেন সে আপনার কাছে কতটা প্রিয়।

পিচ গোলাপঃ

 

আরোগ্যের প্রতীক হল পিচ গোলাপ। কোন ব্যক্তির সততা, আন্তরিকতা এবং সহমর্মিতা বোঝাতে উপহার হিসেবে পিচ গোলাপ দিতে পারেন।

এখন বিষয় হল রেইনবো গোলাপ তাহলে কিসের প্রতীক? প্রথমেই আমরা রেইনবো গোলাপের ইতিহাস জেনে নিই।
রংধনুর সাতটি রঙই বিদ্যমান থাকায় এই গোলাপটির নাম রেইনবো রোজ। ২০০৫ সালে Dutch flower company-এর মালিক Peter Van De Werken নতুন এই গোলাপটি উদ্ভাবন করেন। প্রাথমিক অবস্থায় তিনি কৃত্রিম রং দিয়ে এই গোলাপ উদ্ভাবন করলেও পরবর্তীতে ধীরে ধীরে তিনি গাছেই ফুটাতে সক্ষম হন এই গোলাপ। প্রাথমিক অবস্থায় গোলাপের কলি ফোঁটার সময় তিনি আলাদা করে প্রতিটি পাপড়িতে রঙ দেয়া শুরু করেন। আস্তে আস্তে পাপড়ি গুলো মেলে যাওয়ার পর তা অপূর্ব রঙধনুর রঙে ফুটে উঠে।
যেহেতু সব গোলাপের রঙ এই গোলাপের মধ্যে বিদ্যমান তাই ভালবাসা, আন্তরিকতা, মিস করা,বন্ধুত্ব, আবেগ ইত্যাদি সব বিষয় এক সঙ্গে প্রকাশ করতে এই গোলাপ ব্যবহার করা যায়। তাই রেইনবো গোলাপকে সর্ব বিষয়ের প্রতীক বলা যায়।

Advertisements
Loading...