যে শহরে বাস করতে হলে অস্ত্রোপচার করানো বাধ্যতামূলক!

দক্ষিণ মেরুর বরফের রাজ্যে অনেকগুলো ছোট্ট ছোট্ট শহর

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সত্যিই আশ্চর্য হতে হয়, এমন গ্রামও পৃথিবীতে রয়েছে! যে শহরে বাস করতে হলে অস্ত্রোপচার করানো বাধ্যতামূলক! ঠিক তাই। সেখানে বসবাস করতে চাইলে আপনাকে শল্যচিকিৎসকের ছুরির নিচে যেতে হবেই।

ভাবাই যায় না যে, পৃথিবীতে এমন একটি গ্রাম রয়েছে, যেখানে বাস করতে চাইলে শল্যচিকিৎসকের ছুরির নিচে যেতে হবে! আজব এই গ্রামের নাম হলো এস্ট্রেলা, এটি একটি শহরও বটে। এই শহরে বাস করা প্রত্যেক নাগরিকই অস্ত্রোপচার করিয়ে নিজের অ্যাপেনডিক্স কেটে ফেলে দিতে বাধ্য থাকতে হয়। নতুন করে কেও ওই গ্রামে বাস করতে চাইলেই তাকে নিজের অ্যাপেনডিক্স কেটে ফেলে দিতে হবে। এমন একটি খবর দিয়েছে বিবিসি।

দক্ষিণ মেরুর বরফের রাজ্যে অনেকগুলো ছোট্ট ছোট্ট শহরের মধ্যে একটি শহরই হলো এই ভিলা লে এস্ট্রেলা গ্রাম। প্রচণ্ড ঠাণ্ডা হওয়ার কারণে অন্যান্য শহরগুলোর মতোই এখানেও হাতে গোনা কয়েকটি বাড়ি, একটা পোস্ট অফিস ও একটি স্কুল রয়েছে। তবে অন্যান্য শহরের সঙ্গে এর রয়েছে একটি পার্থক্যও। এস্ট্রেলা শহরে বাস করার জন্য পরিবারের সবাইকেই অ্যাপেনডিক্স অপারেশন করে আসতে হয়, অর্থাৎ অন্য কোনো শহর হতে একেবারেই ভিন্ন। এমনকি শিশুদের জন্যেও এই একই নিয়ম প্রযোজ্য।

এই শহরটিতে কেনো এমন একটি অদ্ভুত নিয়ম প্রচলিত? কারণ এই শহরে খুবই কম পরিমাণে চিকিৎসক থাকেন, তাদের কেওই অস্ত্রোপচার করার বিশেষজ্ঞ নন। এছাড়া সবচেয়ে কাছের হাসপাতালটিও ৬২৫ মাইল দূরে অবস্থিত। হুট করে কারও অ্যাপেনডিক্স অপারেশন দরকার পড়লে হাসপাতালে নিতে গিয়ে তিনি মারাও যেতে পারেন। সে কারণে আগেই অপারেশন করে রাখতে হয় এই শহরটিতে থাকতে হলে।

ওই শহর ভিলা লে এস্ট্রেলাতে মাত্র শ’খানেক বাসিন্দা বসবাস করেন। তাদের মধ্যে আবার বেশিরভাগই হলেন চিলির বিমান বাহিনী বা নৌবাহিনীর সদস্য কিংবা বিজ্ঞানী। তবে অনেকের সঙ্গে তাদের পরিবারের মানুষও আসেন এই শহরে বসবাস করতে। সে কারণেই সেখানে রয়েছে পোস্ট অফিস, ছোট একটি স্কুল, একটি ব্যাংক ও অন্যান্য নাগরিক সুযোগ সুবিধা।

Advertisements
Loading...