রাজধানী ঢাকার ঐতিহাসিক চকবাজার শাহী মসজিদ

মোগল সুবেদার শায়েস্তা খান এই মসজিদটি ১৬৭৬ খ্রিস্টাব্দে নির্মাণ করেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শুভ সকাল। শুক্রবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৮ খৃস্টাব্দ, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরি। দি ঢাকা টাইমস্ -এর পক্ষ থেকে সকলকে শুভ সকাল। আজ যাদের জন্মদিন তাদের সকলকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা- শুভ জন্মদিন।

যে ছবিটি আপনারা দেখছেন সেটি রাজধানী ঢাকার ঐতিহাসিক চকবাজার শাহী মসজিদ। রাজধানী ঢাকা শহরের পুরানো ঢাকা এলাকার চকবাজারে অবস্থিত মোগল আমলের একটি মসজিদ।

মোগল সুবেদার শায়েস্তা খান এই মসজিদটি ১৬৭৬ খ্রিস্টাব্দে নির্মাণ করেন। এই মসজিদে প্রাপ্ত শিলালিপি থেকে এই ধারণা পাওয়া যায়। এই মসজিদটিই সম্ভবত বাংলায় উঁচু প্লাটফর্মের উপর নির্মিত প্রাচীনতম ইমারত বা স্থাপনা হিসেবে গণ্য করা হয়। প্লাটফর্মটির নিচে ভল্ট ঢাকা কতোগুলো বর্গাকৃতি ও আয়তাকৃতি কক্ষ রয়েছে। এগুলোর মাথার উপরে খিলান ছাদও রয়েছে, যার উপরের অংশ আবার সমান্তরাল। ধারণা করা হয় যে, এই মসজিদের প্লাটফর্মের নিচের কক্ষগুলো মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকদের আবাসন হিসেবে ব্যবহার করা হতো, এই ধরণের ভবনগুলোকে বলা হয়ে থাকে ‘আবসিক-মাদ্রাসা-মসজিদ’।

মূলত মসজিদটির আদি গড়নে ছিল ৩টি গম্বুজ। অবশ্য বিভিন্ন সময় সংস্কারকার্য ও নির্মাণ সম্পাদনের কারণে বর্তমানে এর আদি রূপটি আর খুব একটা দেখা যায় না। মসজিদের ভিতরকার নকশা ৩টি বে’তে বিভক্ত ছিল, যার মাঝখানের বে ছিল অনেকটা বর্গাকার। তবে দুপাশের বে ছিল আয়তাকার। ৩টি বে’র উপরেই ছিল গম্বুজ দিয়ে আচ্ছাদিত, মাঝখানের গম্বুজটি ছিল তুলনামূলক আকৃতিতে বড়। এই মসজিদের কেন্দ্রীয় মেহরাবটি অষ্টকোণাকৃতির, যা ২০০৬ সালে সংস্কারের পর আজও সে রকমই রয়েছে। এই মসজিদটি পুরোনো ঢাকার একটি ঐতিহ্য হিসেবে পরিগণিত হয়।

তথ্যসূত্র : http://www.wikiwand.com এর সৌজন্যে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...