The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এডিস মশা তাড়ানোর পদ্ধতি জেনে নিন

ডেঙ্গু নিয়ে দেশব্যাপি এক আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। ঘরে বাইরে কোথাও যেনো শান্তি নেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ডেঙ্গু নিয়ে দেশব্যাপি এক আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। ঘরে বাইরে কোথাও যেনো শান্তি নেই। কখন মশা কামড় দেয় তা নিয়ে চিন্তাই থাকতে হয়। বলা যায় বর্তমানে ডেঙ্গু এক মহামারি আকার ধারণ করেছে। আজ জেনে নিন এডিস মশা তাড়ানোর পদ্ধতি।

এডিস মশা তাড়ানোর পদ্ধতি জেনে নিন 1

আমরা জানি ডেঙ্গু হয় এডিস নামক এক মশার কামড়ে। আর এই মশাটি ঘরের কোণে যে কোনো স্থানেই থাকতে পারে। ঘরের ফুলদানি, ফেলে রাখা ডাবের খোশায় জমে থাকা পানি কিংবা ছাদের ছোট পরিসরে জমে থাকা কোনো অল্প পানি হতেও এই মশার জন্ম হয়। এই মশা নির্মূল না করতে পারলে আমরা ডেঙ্গু হতে মুক্তি পাবো না।

এতোদিন শুধু মাত্র রাজধানী ঢাকার হাসপাতালকগুলোতে ডেঙ্গু আক্রান্ত মানুষের ভীড় ছিলো কিন্তু এখন দেশের প্রায় সব জেলাতেই দেখা যাচ্ছে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগি। এমন অবস্থায় মানুষ আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়ছেন। তবে আতঙ্কগ্রস্থ না হয়ে এটি নির্মূল করার জন্য কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। যেসব ছোট ছোট স্থানের কথা উল্লেখ করা হয়েছে সেগুলোতে যাতে করে কোনো পানি জমে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে পারে।

এই ডেঙ্গু প্রতিরোধে আমরা আরও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারি। তাতে করে কিছুটা হলেও এই এডিস মশা থেকে রেহায় পাবো।

নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করার মাধ্যমে ডেঙ্গু অর্থাৎ এডিস মশা হতে আপনি মুক্ত থাকতে পারেন:

প্রথমে ১ লিটার গরম পানিতে ২ টেবিল চামচ কর্পুর এবং ১ চামচ স্যাবলন মিশিয়ে নিন। তারপর ছোট একটি বাটিতে (১ গ্লাস পরিমাণ পানি ধরে এমন বাটি) ঢালুন এবং ঘরের কোণে সেটি রেখেদিন। ১ লিটার মূলত ৪ গ্লাসের মতো হবে। সুতরাং ৪টি রুমে আপনি এটি রাখতে পারবেন। তবে এটি অবশ্যই ওয়াশ রুমে দিতে ভুলবেন না। বিশেষ করে ডেঙ্গু মশার প্রকোপটা সকাল ও সন্ধ্যায় বেশি থাকে। তাই খেয়াল করে দেখবেন ওয়াশ রুমে সকালে মশা সাধারণত একটু বেশি থাকে।

পরের দিন ওই বাটিতে আবার সামান্য পরিমাণ হাল্কা গরম পানি দিয়ে দিন। তাতেই কাজ হয়ে যাবে। কর্পুর সহজে গলে না। তাই যতোক্ষণ গন্ধ থাকবে নতুন করে কর্পুর দেওয়া লাগবে না। তবে সপ্তাহে অন্তত ২ বার নতুন করে মিশ্রণটি তৈরি করুন। এতে করে মশা ঘর থেকে পালাবে। মশা এই কর্পুরের গন্ধ সহ্য করতে পারে না। এর বৈজ্ঞানিক ভিত্তি যদিও আমাদের জানা নেই, তবে এই পদ্ধতি অনুসরণ করে কিছুটা হলেও এডিস মশার হাত থেকে আপনি রক্ষা পেতে পারেন।

Loading...